‘বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে চট্টগ্রামের উন্নতি করতে হবে’

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নবনিযুক্ত প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, করোনার সময় আমার উপর আস্থা রেখে যে দায়িত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে দিয়েছেন তার জন্য আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ। আমি আমার সর্বচ্চটুকু দিয়ে আমার দায়িত্ব পালন করবো।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রাণ এই চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামের বন্দর বন্ধ থাকলে সারা বাংলাদেশ প্রায় অচল হয়ে যাবে। আর তাই বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে চট্টগ্রামের উন্নতি করতে হবে।

আজ শনিবার (০৮ আগস্ট) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) নসরুল হামিদ মিলনায়তনে চিটাগাং জার্নালিস্ট ফোরাম (সিজেএফ) আয়োজিত মিট দ্য প্রেসে তিনি এ কথা বলেন।

খোরশেদ আলম সুজন বলেন, বড় হোক আর ছোট, কারো জন্য এই সিটি করপোরেশনে দুর্নীতি করার কোনো সুযোগ নাই। মোট কথা দুর্নীতি করে কেউ পার পাবে না।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম বন্দর ও সিটি করপোরেশনে যানজট নিরসন মূল সমস্যা। বন্দরকে আইন মেনে নিয়ম অনুযায়ী পরিচালনা করতে হবে। যেখানে সেখানে কনটেইনার টার্মিনাল হতে দেওয়া হবে না।

চসিকের নবনিযুক্ত প্রশাসক বলেন, জলাবদ্ধতা চট্টগ্রামের একার সমস্যা না, এটা পুরো দেশের সমস্যা। নদী ও সমুদ্রের প্রাকৃতিক শহর হওয়ায় এখানে জলাবদ্ধতা হয়। এ জলাবদ্ধতা দূরীকরণে নতুন প্রকল্প নেওয়া হয়েছে, কাজ চলছে। চট্টগ্রামে এখন যেসব সমস্যা আছে সেটি আশা করছি আগামী এক বছরের মধ্যে সব নিরসন হবে।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের বীর সন্তান মহিউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে আমার সম্পর্কের কারণেই বোধহয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে এ দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি ১৭ বছর মহিউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে ছিলাম। সে অভিজ্ঞতা দিয়ে কাজ করবো। কাজ করতে গিয়ে আমার ভুল হবে। আপনারা সাংবাদিকরা সে ভুল ধরিয়ে দেবেন। নেগেটিভ নিউজ হলে আমি ক্ষেপবো না, এটা আপনাদের কথা দিলাম। আমি সেই শুরু থেকে রাস্তায় ছিলাম, রাস্তায় আছি, থাকবো। কাজ করতে করতে যেনো রাস্তাতেই আমার মৃত্যু হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিজেএফ সভাপতি শাহেদ সিদ্দিকী। সঞ্চালনা করেন সিজেএফ সাধারণ সম্পাদক মোর্শেদ নোমান।

অর্থসূচক/এএ/কেএসআর