ভারতে তিন দিনে পৌনে ২ লাখ শনাক্ত
সোমবার, ৩রা আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ভারতে তিন দিনে পৌনে ২ লাখ শনাক্ত

ভারতে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নাজুক থেকে আরও নাজুক হচ্ছে। দেশটিতে গত তিন দিনে ৫০ হাজারের বেশি করে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত তিন দিনে দেশটিকে প্রায় পৌনে দুই লাখ মানুষের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

শুক্রবার দেশটিতে ৫৫ হাজার মানুষ নতুন করে নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হন। শনিবার তা বেড়ে দাঁড়ায় ৫৭ হাজার। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের সংখ্যা কিছুটা কমে ৫৪ হাজারে নেমেছে।তবে সেটি হয়েছে পরীক্ষা ব্যাপকভাবে কমে যাওয়ায়। কিন্তু পেজেটিভিটি রেট বা সংক্রমণের হার অর্থাৎ পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ২৪ ঘণ্টায় আগের দুই দিনের চেয়ে বেড়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন রোগী শনাক্তের সংখ্যাটি ছিল বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এ সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৫৯ হাজার মানুষ নতুন করে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন,যা সর্বোচ্চ। ব্রাজিলে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৪৫ হাজার মানুষ। তাই বলা যায়,দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে এই মুহূর্তে আমেরিকার ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছে ভারত।

রোববার সকালে প্রকাশিত পরিসংখ্যান অনুযায়ী,গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৪ হাজার ৭৩৫ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭ লাখ ৫০ হাজার ৭২৩ জনে। বিশ্বে সংক্রমণের নিরিখে শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা। সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬ লাখ ২০ হাজার ৪৪৪ জন। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে শনাক্ত হয়েছেন ২৭ লাখ ৭ হাজার ৮৭৭ জন। সেই তালিকায় ভারত রয়েছে তৃতীয় স্থানে।

প্রতিদিন যত সংখ্যক মানুষের করোনা পরীক্ষা হচ্ছে,এবং তার মধ্যে যত শতাংশের রিপোর্ট পজিটিভ আসছে, সেটাকে ‘পজিটিভিটি রেট’ বা সংক্রমণের হার বলা হয়। শুক্রবার তা বেশ খানিকটা কমে নয় শতাংশের কম হয়েছিল। শনিবার তা বেড়ে দাঁড়ায় ১০.৮৭ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের হার বেড়ে ১১.৮২ শতাংশ হয়েছে।গত ২৪ ঘণ্টায় ৪ লাখ ৬৩ হাজার ১৭২ নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, যা আগের দিনের চেয়ে ১ লাখ ৮০ হাজার কম।

তবে এত কিছুর মধ্যেও সুস্থতার হার বৃদ্ধি পাওয়ায় খানিকটা স্বস্তিতে ভারত। দেশে এখনও পর্যন্ত ১১ লাখ ৪৫ হাজার ৬২৯ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। অর্থাৎ মোট আক্রান্তের ৬৫.৪৪ শতাংশই সেরে উঠেছেন চিকিৎসায়। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫১ হাজার ২৫৫ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

গোটা বিশ্বে মৃত্যুর নিরিখে আমেরিকা (১ লাখ ৫৪ হাজার ৪৪৭, ব্রাজিল (৯৩ হাজার ৫৬৩,মেক্সিকো (৪৭ হাজার ৪৭২)এবং ব্রিটেন (৪৬ হাজার ২৭৮)-এর পরেই পঞ্চম স্থানে রয়েছে ভারত। দেশে এখনও পর্যন্ত ৩৭ হাজার ৩৬৪ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৫৩ জন করোনা রোগী প্রাণ হারিয়েছেন।

মৃত্যুর নিরিখে এই মুহূর্তে দেশে শীর্ষে রয়েছে মহারাষ্ট্র। সেখানে এখনও পর্যন্ত ১৪ হাজার ৯৯৪ জন করোনা রোগী প্রাণ হারিয়েছেন। দিল্লিতে প্রাণ হারিয়েছেন ৩ হাজার ৯৬৩ জন করোনা রোগী। তামিলনাড়ুতে কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখনও পর্যন্ত ৩ হাজার ৯৩৫ জন প্রাণ হারিয়েছেন।গুজরাত,পশ্চিমবঙ্গ এবং অন্ধ্রপ্রদেশে এখনও পর্যন্ত যথাক্রমে ২ হাজার ৪৪১,১ হাজার ৫৮১ এবং ১ হাজার ৩৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সংক্রমণের নিরিখেও দেশের মধ্যে শীর্ষে মহারাষ্ট্র। সে রাজ্যে এখনও পর্যন্ত মোট ৪ লক্ষ ৩১ হাজার ৭১৯ জন নোভেল করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দ্বিতীয় স্থানে থাকা তামিলনাড়ুতে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ২ লাখ ৫১ হাজার ৭৩৮। ১ লাখ ৫০ হাজার ২০৯ জন সংক্রমিত হয়েছেন অন্ধ্র্রপ্রদেশে। দিল্লিতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৩৬ হাজার ৭১৬। কর্নাটকে এখনও পর্যন্ত নোভেল করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২৯ হাজার ২৮৭ জন।

দৈনিক আক্রান্ত ও মৃত্যুর নিরিখে অগস্টের প্রথম দিনই রেকর্ড গড়েছে পশ্চিমবঙ্গ। শনিবার রাজ্যটিতে ২ হাজার ৫৮৯ জন শনাক্ত হয়েছেন। একই দিনে করোনায় মারা গেছেন ৪৮ জন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ