বিনামূল্যে সোশ্যাল মিডিয়ার সেবা না দিতে বিটিআরসির নির্দেশ

দেশের মোবাইল অপারেটর ও ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ফেসবুকসহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া ফ্রি ব্যবহারের সুযোগ দিয়ে থাকে। তবে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি বলছে, এসব সেবা গ্রহণ করে কিছু অসাধু ব্যক্তি অপরাধমূলক কাজ করছে। এসব অপরাধ রোধে মোবাইল অপারেটরদের সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কিত সেবা বিনামূল্যে না দিতে নির্দেশ দিয়েছে বিটিআরসি।

বিটিআরসির এই নির্দেশনা পাওয়ার পর অপারেটররা তার বাস্তবায়ন শুরু করেছে।

গত ১৪ জুলাই অপারেটরদের পাঠানো বিটিআরসির চিঠিতে বলা হয়, টেলিযোগাযোগ সেবাদাতা অপারেটরগুলো তাদের গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে সেম্যাল মিডিয়া সম্পর্কিত সেবা আংশিক ফ্রি বা কোনো কোনো ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ ফ্রি বা বিনামূল্যে দিয়ে বাজারে অসুস্থ প্রতিযোগিতা সৃষ্টি করছে। এসব ফ্রি সোশাল মিডিয়া সেবা গ্রহণ করে কিছু অসাধু ব্যক্তি সেম্যাল মিডিয়ায় নানা রকমের অপ্রয়োজনীয় অপরাধমূলক কার্যকলাপ পরিচালনা করে আসছে।

‘এমতাবস্থায়, আপনার প্রতিষ্ঠানের সব গ্রাহককে স্যোশাল মিডিয়া সম্পর্কিত সেবা ফ্রি বা বিনামূল্যে দেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হলো।’

সম্প্রতি তথ্য মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত সভা পরবর্তী বিটিআরসি বিটিআরসির পক্ষ থেকে অপারেটরদের এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্থার সিনিয়র সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন খান।

দেশের চারটি মোবাইল অপারেটর বিভিন্ন ইন্টারনেট প্যাকেজে এ ধরনের সেবা দিয়ে থাকে। সব মিলিয়ে সাত থেকে আটটির বেশি এ ধরনের সেবা নেই। ফেইসবুক, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবারের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কম দামে এসব ইন্টারনেট প্যাকেজ সেবা ছিল।

বিটিআরসির হিসাবে গত মে মাস নাগাদ দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০ কোটি ২১ লাখ ১৩ হাজার, এর মধ্যে ৯ কোটি ৪০ লাখের বেশি গ্রাহক মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন।

অর্থসূচক/কেএসআর