ঢাকা উত্তরেও কমেছে পশুর হাট, বসবে ৬টি
বুধবার, ১২ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ঢাকা উত্তরেও কমেছে পশুর হাট, বসবে ৬টি

ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় ছয়টি পশুর হাট বসবে। এর মধ্যে একটি স্থায়ী এবং বাকি পাঁচটি অস্থায়ী। স্থায়ী হাটটি বসবে গাবতলীতে।

অস্থায়ী পাঁচটি হাট হচ্ছে- উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরে বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ ভবন পর্যন্ত খালি জায়গা, কাওলা শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা, ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাচল ব্রিজ সংলগ্ন মস্তুল ডুমনি বাজারমুখী রাস্তার উভয় পাশের খালি জায়গা, ভাটারা (সাঈদনগর) পশুর হাট এবং উত্তরখান মৈনারটেক হাউজিং প্রকল্পের খালি জায়গা।

আজ মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) গণমাধ্যমকে ডিএনসিসির সিদ্ধান্তের বিষয়গুলো জানিয়েছেন সংস্থাটির প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুন।

তিনি জানান, করোনার গণসংক্রমণ রোধে ই-কমার্স অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) সহায়তায় অনলাইনে পশু কিনে অনলাইনের মাধ্যমে কোরবানি, মাংস প্রক্রিয়াকরণ এবং বাসায় পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।

দরপত্র আহ্বানের পরও জনস্বার্থে ছয়টি হাটের ইজারা বাতিল করা হয়েছে। ইজারা বাতিল হাটগুলো হচ্ছে- বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং (আফতাবনগর), ভাষানটেক রাস্তার অব্যবহৃত ও পরিত্যক্ত অংশ ও পাশের খালি জায়গা, উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের ১ নম্বর ব্রিজের পশ্চিম অংশ এবং ২ নম্বর ব্রিজের পশ্চিম পাশের খালি জায়গা, ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের খেলার মাঠ, মিরপুর-৬ নম্বর সেকশনের ইস্টার্ন হাউজিংয়ের খালি জায়গা এবং মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়ক সংলগ্ন বছিলা হাট।

হাট ইজারা গ্রহীতাদের যেসব শর্ত মানতে হবে
পশুর হাট ঈদের দিনসহ মোট পাঁচদিন চালু থাকবে। নির্ধারিত তারিখের বেশি দিন হাট পরিচালনা করা যাবে না। কোরবানির পশুর হাটের নির্ধারিত সীমানা বহাল থাকবে। সীমানার বাইরে কোনো হাট বসানো যাবে না। ইজারা গ্রহীতা নিজ ব্যবস্থাপনায় হাটের চৌহদ্দি সংরক্ষণপূর্বক চৌহদ্দির বাইরে যাতে পশুর হাট প্রসারিত না হয় তা নিশ্চিত করবে। পশুর বিক্রয় মূল্যের উপর সরকার অনুমোদিত শতকরা পাঁচ টাকা হারে হাসিল আদায় করতে হবে।

ইজারা গ্রহীতা নিজ খরচে বাজারে দৃশ্যমান একাধিক স্থানে সর্বসাধারণের অবগতির জন্য চার্ট প্রদর্শনের ব্যবস্থা করবেন। যথাযথ কর্তৃপক্ষ যে কোনো সময় ইজারা বাতিল বলে ঘোষণা করলে ইজারা গ্রহীতা তা মেনে নিতে বাধ্য থাকবে। হাটে পশু বেঁধে রাখা বা অন্য কোনো কাজে রাস্তার ইলেকট্রিক পিলার ব্যবহার করা যাবে না। ইজারা গ্রহীতা নিজ দায়িত্বে বৈদ্যুতিক লাইন সংযোগ এবং সম্পূর্ণ বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করবে। ইজারা গ্রহীতা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের দফতরে যোগাযোগ করে হাট চলাকালীন সময়ে হাট এলাকায় নিজ খরচে পুলিশ-আনসার মোতায়েনের ব্যবস্থা নেবে। এছাড়া হাটের নিরাপত্তার জন্য নিজস্ব কর্মী নিযুক্ত করবে। হাটের মধ্যে যত্রতত্র ময়লা আর্বজনা ফেলে রাখা যাবে না। নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা আর্বজনা রাখতে হবে।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ