খুঁড়িয়ে চলা আর্থিক প্রতিষ্ঠানেও করোনার আঘাত, সহায়তা দাবি
শনিবার, ৮ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

খুঁড়িয়ে চলা আর্থিক প্রতিষ্ঠানেও করোনার আঘাত, সহায়তা দাবি

বেশ কয়েক বছর ধরেই সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান। দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে এমনিতেই খুঁড়িয়ে হাঁটছিল খাতটি। এরমধ্যে করোনার আঘাতে আরো পিছিয়ে পড়েছে কোম্পানিগুলো। গ্রাহকদের আমানত তুলে নেওয়ার চাপ, খেলাপি ঋণ বৃদ্ধি এবং এসএলআর সংরক্ষণে ব্যর্থতার মত সমস্যাগুলো সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। এই অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে বিভিন্ন নীতি সহায়তা চেয়েছেন খাতটির কর্তারা।


সম্প্রতি প্রকাশিত বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক স্থিতিশীলতা প্রতিবেদনে আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে দুরবস্থার চিত্র উঠে এসেছে। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সাল পর্যন্ত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর আমানতের পরিমাণ আগের বছরের চেয়ে ৩ দশমিক ১০ শতাংশ কমে ৪৫ হাজার ২৩১ কোটি টাকায় নেমেছে। ২০১৯ সাল শেষে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬৭ হাজার ৮০৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয়েছে ছয় হাজার ৪৪১ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের সাড়ে ৯ শতাংশ।
২০১৮ সাল শেষে ৬৫ হাজার ৬৮০ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে খেলাপি ছিল পাঁচ হাজার ১৮৯ কোটি টাকা বা ৭ দশমিক ৯০ শতাংশ। আর সব মিলিয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের তিন হাজার ২৮০ কোটি টাকা প্রভিশন সংরক্ষণের বাধ্যবাধকতা থাকলেও রাখতে পেরেছে দুই হাজার ৩৪০ কোটি টাকা। এর মানে ঘাটতি রয়েছে ৯৪০ কোটি টাকা।
আর্থিক খাতের তারল্য সংকট কাটাতে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর এমডিদের সংগঠন বিএলএফসিএর পক্ষ থেকে ১০ হাজার কোটি টাকার একটি বিশেষ তহবিল চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকে আবেদন করা হয়েছে। তবে বিদ্যমান আইনে এ ধরনের তহবিল দেওয়ার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যদিও প্রতিষ্ঠানগুলোকে টিকিয়ে রাখতে সিআরআর কমানো, শিথিল শর্তে প্রণোদনার অর্থ দেওয়াসহ নানা নীতি সহায়তা দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

গত ৩০ জুন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এমডিদের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাত রক্ষায় ব্যাংকগুলো যেন আমানত তুলে না নেয়, সে জন্য একটি নির্দেশনা দেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়। যদিও কেন্দ্রীয় ব্যাংক কোনো নির্দেশনা দেয়নি। তবে এসব প্রতিষ্ঠান বাঁচাতে প্রণোদনা তহবিল থেকে শিথিল শর্তে দুই হাজার কোটি টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ ছাড়া কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংক গ্যারান্টি দিতে পারলে তার বিপরীতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে স্বল্পমেয়াদি ঋণ এবং এসব প্রতিষ্ঠানের ঋণ নবায়নের শর্ত শিথিলের আশ্বাস দেওয়া হয়। এর আগে গত ১ জুন থেকে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সিআরআর সংরক্ষণের হার আড়াই শতাংশ থেকে কমিয়ে দেড় শতাংশ করা হয়েছে। এতসব সুবিধা দেওয়া হয়েছে এই খাতকে টিকিয়ে রাখার লক্ষ্যে। যদিও প্রতিষ্ঠান ব্যাংকের মতো সুদহার কমাতে পারছে না। বর্তমানে এসব প্রতিষ্ঠানের সুদহার রয়েছে ১২ থেকে ১৮ শতাংশ।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, ২০১৯ সালে ছয়টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান সিআরআর রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। একটি প্রতিষ্ঠান এসএলআর সংরক্ষণ করতে পারেনি। এসব প্রতিষ্ঠানের নাম সেখানে উল্লেখ করা হয়নি। তবে চলতি বছরের জানুয়ারিতে জাতীয় সংসদে প্রকাশিত ব্যাংকের ঋণখেলাপির তালিকায় ছয়টি প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে আসে। এই তালিকায় অবসায়ন প্রক্রিয়ায় থাকা পিপলস লিজিং ছাড়াও নাম রয়েছে- বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি), ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, এফএএস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট এবং প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট। ঋণখেলাপির তালিকায় থাকা এসব প্রতিষ্ঠানই বেশি সংকটে রয়েছে। এর মধ্যে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং, পিপলস লিজিং, এফএএস ফাইন্যান্স ও বিআইএফসির মালিকানায় অস্বাভাবিক পরিবর্তন আসে। এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক এমডি প্রশান্ত কুমার হালদার নানা জালিয়াতির মাধ্যমে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা বের করে নিয়ে যান বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন প্রতিবেদনে উঠে আসে।

পিপলস লিজিং অবসায়ন প্রক্রিয়ার মধ্যে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংকে ঘোরানোর চেষ্টায় গত ২১ জানুয়ারি স্বাধীন পরিচালক ও চেয়ারম্যান হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদকে নিয়োগ দেন আদালত। তবে যে প্রতিষ্ঠানের টাকা পাচার হয়ে গেছে, তা উদ্ধার সম্ভব নয় জানিয়ে এক মাসের মাথায় পদত্যাগ করেন তিনি।

অর্থসূচক/জেডএ/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ