সরকারি উদ্যোগে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট
সোমবার, ১০ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সরকারি উদ্যোগে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট

মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে এবারের ঈদুল আজহা হবে অন্যরকম। করোনাকালীন ঈদের প্রস্তুতিতে ডিজিটাল মাধ্যমকেই অনেকে পছন্দ করবে।

করোনা সংক্রমণ রোধে যেখানে সামাজিক ও শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখার কথা বলা হচ্ছে- সেখানে কোরবানির পশুর হাটের ব্যাস্ত ও জনবহুল জায়গায় ক্রেতারা পশু কিনতে আসবেন কি-না, সে বিষয়েও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

এ অবস্থায় খামারি ও ক্রেতাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ে ডিজিটাল হাটের ব্যবস্থা করেছে। সরকারি উদ্যোগে ‘কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট’ নামের উদ্যোগে পশু কেনাবেচার নিবন্ধন করা যাচ্ছে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ সূত্র জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের অধীনে উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমি প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প আইডিয়া এর আগে ‘ফুড ফর নেশন’ নামে একটি প্ল্যাটফর্ম গঠন করে। এরই আলোকে আইডিয়া প্রকল্পের ‘স্টার্টআপ বাংলাদেশ’ ব্যানারে ডিজিটাল হাটের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এই হাটে ক্রেতারা ঘরে বসেই গরুর ছবি ও ভিডিও দেখার ও লাইভ ওজন জানার সুযোগ পাবেন। একই সঙ্গে খামারি বা ব্যাপারীদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করার সুযোগ পাবেন গরু বিক্রেতা। এরপর নির্দিষ্ট স্থান থেকে অথবা হোম ডেলিভারির ভিত্তিতে অর্থের বিনিময়ে গরু সংগ্রহ করতে পারবেন।

দেশের সর্ববৃহৎ এই ডিজিটাল হাটের জন্য সারা দেশ থেকে গরু- ছাগলের চাষি, খামারের মালিক ও সাধারণ পশু ব্যবসায়ীদের নিবন্ধন কার্যক্রম ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে। উল্লেখিত পেশার যে কেউ https://foodfornation.gov.bd/qurbani2020/ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে বিনামূল্যে নিবন্ধন করার সুযোগ পাবেন। নিবন্ধনের পর নিজস্ব প্যানেল থেকে পশুর ছবি, ভিডিও ও অন্যান্য তথ্য আপলোড করতে হবে।

এসব ছবি ও তথ্য ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকার তার নিজ খরচে প্রচার করবে। ফলে ক্রেতারা সহজেই তাদের কোরবানির জন্য প্রয়োজনীয় পশু পছন্দের সুযোগ পাবেন এবং বিক্রেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে ডেলিভারি নিতে পারবেন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক বলেন, ফুড ফর ন্যাশন প্লাটফর্মটি কোরবানির পশুর জন্য দেশের সবচেয়ে বড় ম্যাচ মেকিং ডিজিটাল হাট হতে যাচ্ছে।

খামারি ও চাষিদের অর্থনৈতিক ক্ষতি এবং ক্রেতা ও তাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য আমরা এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমি সারা দেশের খামারি ও চাষিদের অনুরোধ জানাচ্ছি, আপনারা আপনাদের পশুর তথ্য নিয়ে এই প্লাটফর্মে আসুন। আমরা দেশের সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষা অটুট রেখেই আমাদের অর্থনৈতিক ও ধর্মীয় কর্মকাণ্ডগুলো চালু রাখতে চাই, যোগ করেন জুনাইদ আহ্মেদ পলক।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ