বীজ উৎপাদনে ঋণ পাবেন কৃষকরা
বৃহস্পতিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

বীজ উৎপাদনে ঋণ পাবেন কৃষকরা

Masterdকৃষি ফসল উৎপাদনের পাশাপাশি এবার বীজ উৎপাদনের জন্যও ঋণ পাবেন কৃষকরা। ৩১ ধরনের ফসলের বীজ উৎপাদনের জন্য তারা ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে পারবেন।

বুধবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কৃষিঋণ ও আর্থিক সেবাভুক্তি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত এক প্রজ্ঞাপন জারি করে সকল তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠানো হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে এ ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নিয়ম নীতি উল্লেখ করা হয়েছে। এর আগে কৃষিঋণ নীতিমালায় শুধু কৃষি ফসল উৎপাদনের জন্য কৃষকেরা ঋণ নিতে পারতেন।

কৃষকরা যেসব বীজের জন্য ঋণ নিতে পারবেন সেগুলো হলো-রোপা,আমন,বোরো, গম (সেচসহ),অর্থকরী ফসল পাট, মসলাজাতীয় ফসলের মধ্যে মরিচ, পেঁয়াজ (বাল্ক), রসুন, পেঁয়াজ (প্রকৃত বীজ,শাকসবজির মধ্যে শিম, লালশাক, পালংশাক, কলমিশাক, লাউ, মুলা, বরবটি, বেগুন, উচ্ছে, ঢ্যাঁড়স, পুই ও ডাঁটা।  তৈলজাতীয় ফসলের মধ্যে সরিষা,সয়াবিন, চিনাবাদাম, সূর্যমুখী এবং ডাল জাতীয় শস্যের মধ্যে মুগ ডাল (খরিপ-১,মুগডাল (রবি), মাষকলাই, ছোলা, মসুর ও খেসারি ডাল ও আলু বীজ।

নীতিমালায় বলা হয়েছে,সব ধরনের খরচসহ একরপ্রতি তিন হাজার ৯৯৫ টাকা থেকে চার লাখ তিন হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে।

পাট, মরিচ, পেঁয়াজ (প্রকৃত বীজ), শাকসবজি ও সূর্যমুখী ফুলের জন্য সর্বোচ্চ এক একর এবং আলু ফসলের জন্য সর্বোচ্চ আড়াই একর জমিতে বীজ তৈরির ঋণ দেওয়া হবে। অন্যান্য ফসলের বীজ উৎপাদনে সর্বোচ্চ পাঁচ একর জমি পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে। কৃষকেরা এসব ঋণ পরিশোধে ফসল সংগ্রহের পর আরও ছয় মাস সময় পাবেন বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ