আফ্রিকায় হাতির রহস্যময় মৃত্যুতে দুশ্চিন্তায় বিজ্ঞানীরা
বুধবার, ১২ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

আফ্রিকায় হাতির রহস্যময় মৃত্যুতে দুশ্চিন্তায় বিজ্ঞানীরা

আফ্রিকার বাতসোয়ানায় দুই মাসের মধ্যে ৩৫০টি হাতির মৃত্যু হয়েছে। অল্প সময়ের ভেতর এতগুলো হাতি মারা যাওয়ার কারণ বুঝতে পারছেন না বিজ্ঞানীরা। হাতির নতুন কোন অসুখ ছড়িয়ে পড়েছে কিনা, সেটাও বোঝা যাচ্ছে না।

মহামারি করোনার মধ্যেই এবার হাতি মৃত্যুর খবর নতুন আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আফ্রিকার মোট হাতির সংখ্যার এক তৃতীয়াংশই রয়েছে বাতসোয়ানায়। বাতসোয়ানার উত্তর-পশ্চিম ভাগে মূলত মৃত্যু হচ্ছে হাতিদের। দেশটির ওকাভাংগো ডেলটায় ৩৫৬টি হাতি মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওয়াইল্ড লাইফ অ্যান্ড ন্যাশনাল পার্কের অ্যাকটিং ডিরেক্টর সিরিল টাওলো।

আফ্রিকার মাত্রারিক্ত চোরাশিকারের জন্য সংকটে সেখানকার বন্যপ্রাণী। ক্রমশ কমে আসছে হাতির সংখ্যা। তদন্তে হাতিগুলোর উপর বিষ বা অ্যানথ্রাক্স প্রয়োগের কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি। মৃত হাতিগুলোর শুঁড় ও দাঁত অক্ষত এবং এগুলোর মৃতদেহে কোন ক্ষতচিহ্নও নেই। কাজেই এগুলো চোরাশিকারির শিকার হওয়ার সম্ভাবনা কম।

আঞ্চলিক বন্যপ্রাণী কোঅর্ডিনেটর দিমাকাটসো নেশেবে জানিয়েছেন, ঠিক কী কারণে হাতিগুলোর মৃত্যু হয়েছে তা এখনও পর্যন্ত অজানাই রয়ে গেছে।

তবে যুক্তরাজ্যের চ্যারিটি ন্যাশনাল পার্কের প্রধান ড. নিয়াল ম্যাকক্যানের মতে, কোনকিছু হাতিগুলোর নিউরোলজিক্যাল সিস্টেমে আক্রমণ করতে পারে। এর ফলেই হাতিগুলোরর আচমকা মৃত্যু হয়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

৯০-এর দশকের শেষের দিকে বাতসোয়ানায় হাতির সংখ্যা বাড়ে। সেই সময় এখানে হাতির সংখ্যা ৮০ হাজার থেকে বেড়ে হয় ১ লাখ ৩০ হাজার। তবে হাতির সংখ্যা বাড়ায় আশপাশের গ্রামে সমস্যা বেড়েছে। জঙ্গল থেকে হাতি বেরিয়ে চাষের ক্ষেত নষ্ট করছে বলে গ্রামবাসীরা প্রায়ই অভিযোগ করেন।

সূত্র: বিবিসি

অর্থসূচক/এসএস/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ