চিকিৎসকদের খাবারের বিলে প্রধানমন্ত্রীর বিস্ময় প্রকাশ

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের সেবাদানকারী চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের এক মাসের খাবারের বিল ২০ কোটি টাকা কী করে হয়, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বিরোধীদলীয় উপনেতা ঠিকই বলেছেন, ২০ কোটি টাকা অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে। এটা আমরা পরীক্ষা করে দেখছি। এত অস্বাভাবিক কেন হবে? যদি কোনো অনিয়ম হয় আমরা ব্যবস্থা নেব।

আজ সোমবার (২৯ জুন) সকালে সংসদে চলমান বাজেট অধিবেশনে সংসদ নেতার সমাপনী বক্তব্য রাখেন শেখ হাসিনা। এ সময় করোনা পরিস্থিতিতে অর্থনীতি চলমান রাখতে নতুন বাজেটের ভূমিকা নিয়ে বক্তব্য রাখেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের গতিধারা বজায় রাখতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স অব্যাহত থাকবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদেরতো একটা লক্ষ্য থাকতে হবে। করোনা সবকিছুকে স্থবির করে রেখেছে। কিন্তু আমরা সবসময় আশাবাদী, এই অবস্থা থেকে উত্তরণ ঘটবে। তবে উত্তরণ ঘটলে আমরা আগামীতে কি করবো? সে বিষয়ে আমাদের প্রস্তুতি থাকা দরকার বলে আমি মনে করি। সেজন্যই আমরা উচ্চাবিলাসী বাজেট দিয়েছি। আশা করি এটা আমরা বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হবো।

তিনি আরো বলেন, করোনার কারণে অর্থনীতির উৎপাদন ব্যহত হলেও অর্থনৈতিক অবকাঠামোর কোনো ক্ষতি হয়নি। এছাড়া করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিতে সকল চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থকর্মীদের থাকা খাওয়া যাওয়া আসা সম্পূর্ণ সরকারি খরচে বহন করা হয়েছে।

এ সময় করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় আরও চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীর পদ সৃষ্টি ও নিয়োগের কথা জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমরা আরও চার হাজার নার্স নিয়োগ দিচ্ছি। স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে এ বিষয়ে নির্দেশ দিয়েছি। শিগগিরই এই নার্স নিয়োগ দেয়া হবে।

অর্থসূচক/কেএসআর