‘বিএনপির স্থান হবে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে’

dru
dru
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত আলোচনা সভার বক্তারা

মিথ্যাচারের মধ্য দিয়েই বিএনপির জন্ম হয়েছে। তাদের লক্ষই মিথ্যাচারের মাধ্যমে স্বাধীনতার চেতনা থেকে জাতিকে দূরে সরিয়ে নেওয়া এবং ইতিহাস বিকৃতির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর অবদান অস্বীকার করা। ইতিহাস বিকৃতিকারী বিএনপির স্থান হবে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে।

রোববার দুপুর ১ টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘বিএনপির মিথ্যাচার ও চলমান রাজনীতি’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী এ কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি বলেন, ইতিহাস বিকৃত করে, পাঠ্যপুস্তকে ইতিহাসকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করে বঙ্গবন্ধুকে হেয় করা যাবে না। বাঙালির ইতিহাসে তিনি সূর্যের মতো, হিমালয়ের মতো।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, আপনাদের মুখে মানবাধিকার লঙ্ঘনের কথা শোভা পায় না। ৭৫-এ বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিচার বন্ধ করতে আপনারা আইন তৈরি করেছিলেন তখন মানবাধিকার কোথায় ছিল? ২০০১ নির্বাচন পরবর্তী সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচার এবং ২০১৪ নির্বাচনের আগে গাড়িতে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যার সময় মানবাধিকার কোথায় ছিল? –প্রশ্ন রাখেন তিনি।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফয়েজউদ্দীন মিয়া বলেন, বিএনপি রাজনীতির মাঠকে ঘোলা করে বিদেশি প্রভুদের ওপর নির্ভর করে ক্ষমতায় যাওয়ার দিবাস্বপ্ন দেখছে। জঙ্গিবাদীদের উস্কে দিয়ে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারাবাহিকতা নস্যাৎ করার চেষ্টা করছে।

আলোচনায় চিত্রনায়ক ফারুক বলেন, যে নেত্রী নিজের জন্মদিন নিয়ে প্রতারণা করে তার কাছ থেকে কোনোভাবেই সত্য আশা করা যায় না। বিএনপির জন্ম ৭৭ সালে ৭০ নিয়ে তাদের ভাবার কোনো দরকার নেই।

ফাল্গুনী হামিদ বলেন, বিএনপি যখন দেখছে শুধু বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্বের কাছে শেখ হাসিনা জনপ্রিয় হচ্ছে তখনই মিথ্যাচার শুরু করেন তারা। এ সময় তিনি অর্বাচীন তারেক রহমানকে দেশে এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক বলেও দাবি করেন।

চিত্রনায়ক ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কুয়েত আওয়ামী লীগের সাধারণ-সম্পাদক হাবিবুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক আবদুল মতিন, চিত্রনায়ক ড্যানিসিডাক, চিত্রনায়িকা দিলারা ইয়াসমিন, হাসান আশু, ওয়াহিদুজ্জামান মতি, মুজিব মোহসিন পিয়াস, ইসমত আরা, হানিফ খান প্রমুখ।

ইউএম/এ এস