দাম বেড়েছে শাকসবজি ও মুরগির
সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

দাম বেড়েছে শাকসবজি ও মুরগির

বাজারে সবজি ভরপুর থাকলেও সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। পাশাপাশি দাম বেড়েছে মুরগির। তবে কমেছে পেঁয়াজ-রসুনের দাম। আর অপরিবর্তিত রয়েছে চাল-ডাল-তেল-লবণসহ অন্যান্য পণ্যের দাম।

আজ শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজখবর নিয়েই এবং ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।

কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে বাজারে বর্তমানে পটল ৪০-৫৫ টাকা, ঝিঙা-চিচিঙা-ধন্দুল ৪০-৬০ টাকা, কাকরোল ৬০-৭০ টাকা, করলা ও উস্তি ৬০-৭০ টাকা, কচুর ছড়া ৫০-৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে প্রতি কেজি টমেটো ৪০-৬০ টাকা, পেঁপে ৪০-৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০-৫০ টাকা, কচুর লতি ৫০-৬০ টাকা, বেগুন ৪০-৮০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৫০-৬০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

দাম বাড়ার বিষয়ে শেওড়াপাড়ার সবজি বিক্রেতা জালাল বলেন, বর্তমানে অনেক সবজির সিজন না হওয়ায় সেগুলোর বাড়তি দাম রয়েছে পাইকারি বাজারে। তাছাড়া সবজির দাম আমদানির ওপর নির্ভর করে। বাজারে মালামাল বেশি হলে দাম কমে, মালের সংকট হলে দাম বেড়ে যায়। পাইকারি বাজারের দাম অনুপাতে আমরা খুচরা বাজারে মালামাল বিক্রি করি।

গরু ও খাসির মাংসের দাম অপরিবর্তিত থাকলেও বেড়েছে মুরগির বাজার। সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ২০-২৫ টাকা বেড়ে বর্তমানে প্রতি কেজি বয়লার ১৫৫-১৬০ টাকা, লেয়ার ২২০ টাকা, সাদা লেয়ার ১৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে প্রতি কেজি সোনালি মুরগী বিক্রি হচ্ছে ২৫০ থেকে ২৮০ টাকা, দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা।

মুরগির দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত আছে ডিমের দাম। বর্তমানে প্রতি ডজন লাল ডিম (আকারভেদে) বিক্রি হচ্ছে ৯০-৯৫ টাকা, দেশি মুরগির ডিমি ১৪০-১৫০ টাকা, সোনালী মুরগির ১২০-১৩০ টাকা, হাঁসের ১১৫-১২৫ টাকা, কোয়েল প্রতি ১০০ পিস ডিম ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মুরগির দাম বৃদ্ধি বিষয়ে শেওড়াপাড়া বাজারের মুরগি বিক্রেতা শাহিন বলেন, ঈদের আগে পাইকারি বাজারে মুরগির সংকট থাকায় দাম বেশি ছিল। পাইকারি বাজারে গত সপ্তাহে সরবরাহ বেশি ছিলো তাই দামও কম ছিল। দুইদিন ধরে আবারও মুরগি সংকট কাপ্তান বাজারে। এ কারণে সেখানে দাম বাড়তি থাকায় খুচরাতেও বেড়েছে দাম।

দাম বাড়তি রয়েছে মাছের বাজারেও। বাজারে দাম বেড়ে প্রতি কেজি কাঁচকি মাছ৩৮০-৪২০ টাকা, মলা ৪০০-৪৫০ টাকা, ছোট পুটি (তাজা) ৫৫০-৬০০ টাকা, ছোট পুটি ৩০০-৪০০ টাজা, টেংরা মাছ (তাজা) ৭০০-৮০০ টাকা, দেশি টেংরা ৫০০-৫৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া প্রতি কেজি শিং (আকারভেদে) ৩০০-৫৫০ টাকা, পাবদা ৩২০-৫৫০ টাকা, চিংড়ি (গলদা) ৪০০-৭০০ টাকা, বাগদা ৫৫০-১০০০ টাকা, হরিণা ৪০০-৫৪০ টাকা, দেশি চিংড়ি ৩৫০-৫৫০ টাকা, রুই (আকারভেদে) ২৫০-৩৫০ টাকা, মৃগেল ২০০-৩২০ টাকা, পাঙাস ১৫০-২০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০-১৮০ টাকা, কৈ ১৮০-২০০ টাকা, কাতল ২০০-৩২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। এদিকে এক কেজি ওজনের ইলিশ ১০০০-১০৫০ টাকা, ৭৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৭৫০ টাকা থেকে ৮০০, ছোট ইলিশ আকারভেদে ৩৮০-৪৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে দাম কমেছে পেঁয়াজ, আদা ও রসুনের। কেজিতে পাঁচ টাকা কমে এসব বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০-৪৫ টাকা, কেজিতে ২০ টাকা কমে রসুন বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা। কেজিতে ১০-২০ টাকা কমে প্রতি কেজি আদা বিক্রি হচ্ছে (মানভেদে) ১৪০-১৫০ টাকা।

অর্থসূচক/এমআরএম/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ