দেশে প্রতিমাসে ইলেকট্রনিক লেনদেন ৮৭ কোটি মার্কিন ডলার
শনিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

দেশে প্রতিমাসে ইলেকট্রনিক লেনদেন ৮৭ কোটি মার্কিন ডলার

TheStar_delliবর্তমান সময়ে প্রতিমাসে দেশে ইলেকট্রনিক লেনদেনের পরিমাণ ৮৭ কোটি মার্কিন ডলার। এটি দেশের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে। নিরাপত্তা জোরদার করা সম্ভব হলে এই খাতের গ্রাহকদের লেনদেন আরও বৃদ্ধি পাবে। শনিবার রাজধানীর ডেইলি স্টার ভবনের কনফারেন্স হলে ‘দেশে ইলেকট্রনিক ব্যাংকের সুযোগ ও সম্ভাবনা’ বিষয়ক গোলটেবিল আলোচনায় বিভিন্ন ব্যাংকের প্রতিনিধিরা এ কথা বলেন।

ইস্টার্ণ ব্যাংক বাংলাদেশ ও দি ডেইলি স্টারের যৌথ উদ্যোগে এ আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করে ইস্টার্ন ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কমকর্তা আলী রেজা ইফতেখার।

মূল বক্তব্যে বলা হয়, দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নে আধুনিক ব্যাংকিং সিস্টেম ব্যাপক ভূমিকা রাখে। এর মাধ্যমে ব্যবসায়িক সম্প্রদায়ের পাশাপাশি দেশ এবং জাতির জীবন মানের উন্নয়ন করা সম্ভব।

আলোচনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী ব্যবস্থাপক দেব দুলাল রায় বলেন, বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং খাতে গ্রাহকের সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ। প্রতিমাসের এই গ্রাহকদের লেনদেন থেকে আয় হয় প্রায় ২৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

তবে এ খাতে নিরাপত্তার কারনে সাধারন মানুষ ই- ব্যাংকিং এর মাধ্যমে লেনদেন করতে চায়না। এ ক্ষেত্রে সাধারন মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির প্রয়োজন রয়েছে।

ইস্টার্ণ ব্যাংকের ডিএমডি আখতার কামাল তালুকদার বলেন, দেশে ইলেক্ট্রনিক লেনদেন ও মোবাইল ব্যাংকিং খুবই সম্ভাবনাময়। তবে এক্ষেত্রে কিছু সমস্যাও রয়েছে। সাইবার ক্রাইম ও মানি লন্ডারিং এ খাতের সবচেয়ে বড় সমস্যা বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, মোবাইল ব্যাংকিং ও ইলেকট্রনিক লেনদেনে অধিক ব্যয় হয়। এই বিষয়ে গ্রাহকদের পর্যাপ্ত জ্ঞান ও দক্ষতার অভাবও রয়েছে। ফলে এই খাতকে শক্তিশালী করতে একে গ্রাহকদের কাছে একে আরও সহজে উপস্থাপন করতে হবে।

বক্তারা বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নে ইলেকট্রনিক লেনদেনের গুরুত্ব অনেক বেশি। প্রচলিত লেনদেনের পাশাপাশি গতিশীল, নিরাপদ ও সহজ লেনদেনের সুবিধা পাওয়া যায় বলেই এটি অনেক বেশি গ্রহণযোগ্য। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে লেনদেনের ক্ষেত্রে এর সফলতা প্রমাণিত হয়েছে।

এতে বলা হয়, ২০১১ সালে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু হয়। তখন থেকেই বিকাশ ও ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং ইলেকট্রনিক লেনদেনের সুবিধা দিয়ে আসছে।

বক্তারা আরো বলেন, নিরাপত্তা ব্যবস্থা আধুনিক ও সেবা খরচ হ্রাস করা সম্ভব হলে এই খাতটি আরও সম্ভামনাময় হয়ে উঠবে।

আলোচনা সভায় বিভিন্ন ব্যাংকের প্রতিনিধিত্ব করেন সোনালী ব্যাংকের আইটি বিভাগের ডিজিএম মোহাম্মদ শামীম-উল-হক, ইস্টার্ণ ব্যাংক লিমিটেডের হেড অফ কনজ্যুমার নাজিম চৌধুরী, আল-আরাফা ইসলামী ব্যাংকের সৈয়দ মাসুদুল বারি, এক্সিম ব্যাংকের আ.ন.ম. নুরুল হক, মাস্টার কার্ড প্রতিনিধি, সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল, বিকাশের সিইও কামাল কাদির প্রমুখ।

এমআর/ এমই

এই বিভাগের আরো সংবাদ