দূর্বল হয়ে আসছে করোনাভাইরাস!
শুক্রবার, ৩রা জুলাই, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page
ইতালির চিকিৎসকের দাবি

দূর্বল হয়ে আসছে করোনাভাইরাস!

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের আতঙ্কে কাঁপছে পুরো বিশ্ব। মারাত্মক সংক্রামক এই ভাইরাসে ইতোমধ্যে বিশ্বে ৬২ লাখ ৬৬ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছে।এদের মধ্যে ৩ লাখ ৭৩ হাজার মানুষ ভাইরাসটির আক্রমণে মারা গেছেন। ভয়ঙ্কর এই ভাইরাসে বিপর্যস্ত মানুষের জীবন ও জীবিকা। বিশ্ব অর্থনীতি স্মরণকালের সবচেয়ে তীব্র মন্দার মুখে।

অর্থনীতি বাঁচাতে ঝুঁকি নিয়েই বিভিন্ন দেশ লকডাউন তুলে নিচ্ছে। খুলে দিচ্ছে কলকারখানা ও অফিস। তাতে বিশ্ব আরও মারাত্মক বিপর্যয়ের মুখে পড়বে বলে যখন আশংকা করছেন সবাই, তখনই অবিশ্বাস্য এক আশারবাণী শোনা গেছে।


প্রিয় পাঠক, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত দেশ-বিদেশের নির্বাচিত নিউজ ও টিপস এখন থেকে পাওয়া যাবে আমাদের 

                   ফেসবুক গ্রুপ Corona: News & Tips । গ্রুপটিতে যোগ দিয়ে সহজেই থাকতে পারেন আপডেট 


করোনায় নাস্তানাবুদ ইতালির একজন চিকিৎসা বিজ্ঞানী আলবার্তো জাংরিলো’র মতে দিনে দিনে দূর্বল হয়ে আসছে করোনাভাইরাস। হারাচ্ছে তার বিধ্বংসী ক্ষমতা। মানুষের শারীরিক ক্ষতি করার ক্ষমতা তার কমে আসছে দিন দিন।

খবর রয়টার্স ও ডেইলি মিররের

ইতালির মিলান শহরের সান রাফায়েল হাসপাতালের প্রধান চিকিৎসক আলবার্তো জাংরিলো বলছেন, বাস্তবতা হল ইতালিতে ভাইরাসটি ক্লিনিক্যালি আর নেই। এক অথবা দুই মাস আগে যে অবস্থা ছিল গত ১০ দিনে তা পরিমাণগত বিবেচনায় ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র পর্যায়ে চলে এসেছে।

ইতালিতে মে মাসের শুরুতেও ভয়াবহ অবস্থা ছিল। কিন্তু শেষ দিকে পরিস্থিতি বেশ নিয়ন্ত্রণে সেখানে।

তবে জাংরিলো’র এই দাবি কতটা বাস্তবসম্মত তা নিশ্চিত হতে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। কারণ ইতালিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে করোনা পরিস্থিতির ব্যাপক উন্নতি হলেও বিশ্বের অনেক দেশে কিন্তু এখনও তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছে এই ভাইরাসটি।যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে ক্রমেই পরিস্থিতির আরও অবনতি হচ্ছে। এমনকি বাংলাদেশেও বাড়ছে সংক্রমণের গতি ও মৃত্যুর সংখ্যা।

অবশ্য জাংরিলো এক নন; ইতালির আরও একজন চিকিৎসক করোনাভাইরাসের দূর্বল হয়ে আসার দাবি করেছেন। দেশটির এএনএসএ নিউজ এজেন্সিকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে মাত্তিও বাসেটি নামের এক চিকিৎসক এই দাবি করেছেন। তিনি বলেন,দুই মাস আগে ভাইরাসের যে শক্তি ছিল এখন আর সেটি নেই। কোভিড-১৯ এখন পরিষ্কারভাবে ভিন্ন রোগ।

তবে এদের আগেও কিছু বিশেষজ্ঞ এমন আশাবাদের কথা শুনিয়েছিলেন। এদের মধ্যে কয়েকজন বিশ্বসেরা স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞও আছেন।তাদেরই একজন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ক্যান্সার প্রোগ্রামের প্রাক্তন পরিচালক প্রফেসর কারল সিকোরা। গত ১৮ মে তিনি এক টুইট বার্তায় দাবি করেন, কোনো টিকা তৈরির আগেই ভাইরাসটি প্রাকৃতিকভাবে পুড়ে শেষ হয়ে যাতে পারে। নিজ থেকেই এই ভাইরাস ধ্বংস হয়ে যেতে পারে এই ঘাতক ভাইরাস।

প্রফেসর কারল সিকোরা লিখেছেন, করোনাভাইরাস চলে যাওয়ার সত্যিকারের সম্ভাবনা রয়েছে। কোনো টিকা তৈরির আগে ভাইরাসটি প্রাকৃতিকভাবে পুড়ে ধ্বংস হয়ে যাবে। আমরা সর্বত্র প্রায় একই ধরনের প্যাটার্ন দেখছি। আমার মনে হয়, আমাদের অনুমানের চেয়ে বেশি রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে।

তিনি লিখেছেন,ভাইরাসটিকে ধীরগতিতে ছড়ানো জন্য কাজ করতে হবে আমাদের। তবে এটি নিজেই একসময় গিয়ে আর ছড়াতে পারবে না। অনেকেই তার দাবিটি নিয়ে প্রশ্ন তুললে তিনি বলেন, আমার মতে এটি একটি সম্ভাব্য পরিস্থিতি।কেউ নিশ্চিতভাবে বলতে পারছেন না,‘আসলে কী হবে?’আমি বিশ্বাস করি এমন অজানা পরিস্থিতিতে এটি একটি সম্ভাবনা।

তবে বিশ্বের ইতিহাসও তাদের এমন দাবির পক্ষে সাক্ষ্য দিচ্ছে।অতীতে বেশ কিছু ভয়ঙ্কর ভাইরাস লাখ লাখ মানুষের প্রাণ কেড়ে নেওয়ার পর নিজে থেকেই দূর্বল হয়ে প্রায় হারিয়ে গেছে। নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ক্ষেত্রেও যদি এমনটা ঘটে তাহলে এই মুহূর্তে এরচেয়ে বড় সুখবর আর থাকবে না মানবজাতির জন্য। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে- করোনার দূর্বল রূপ দেখতে আর কতদিন অপেক্ষা করতে হবে আমাদের? এর মধ্যে নতুন করে কতগুলো প্রাণ হারাতে হবে?

তবে প্রাকৃতিকভাবে যদি শেষ না-ও হয়, তবু হয়তো এই ভাইরাসটিকে ভালোভাবে মোকাবেলা করার একটি উপায় পেয়ে যাবেন বিজ্ঞানীরা। হয়  করোনার টিকা নয়তো চিকিৎসার কার্যকর ওষুধ উদ্ভাবিত হবে কিছু দিনের মধ্যেই। ততদিন পর্যন্ত নিরাপদ থাকতে মেনে চলতে হবে স্বাস্থ্যবিধিসহ সর্বোচ্চ সতর্কতা।

এই বিভাগের আরো সংবাদ