ফ্লয়েড হত্যা: বিক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র
মঙ্গলবার, ৭ই জুলাই, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ফ্লয়েড হত্যা: বিক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র

যুক্তরাষ্ট্রের মিনিয়াপোলিসে শ্বেতাঙ্গ পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার ঘটনায় চলছে বিক্ষোভকারীদের প্রতিবাদ। করোনায় লকডাউনের ভেতরেই হোয়াইট হাউসের বাইরেও প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভ করছে মানুষ। কারফিউ ভেঙেই নিউইয়র্ক, আটলান্টা, লাস ভেগাসের রাস্তায় রাস্তায় চলছে ভাঙচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগের ঘটনা। নিহতের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে সমবেদনা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ‘থার্ড ডিগ্রি’ খুনের মামলাও দায়ের হয়েছে। তবু বিক্ষোভ  চলছেই।

‘আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে, আর পারছি না। মরে যাচ্ছি আমি’—গত  সোমবার ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে এভাবেই আর্তনাদ করছিল জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড(৪৬)। তার গলায় হাঁটু দিয়ে চেপে রেখেছিল শ্বেতাঙ্গ পুলিশ অফিসার ডেরেক শভিন(৪৪)। প্রায়  পাঁচ মিনিট পরে শ্বাসরোধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় জর্জ ফ্লয়েড। মোবাইল ফুটেজ সামনে আসার পরপর ওই ঘটনায় জড়িত চার পুলিশকে বরখাস্ত করা হয়। ডেরেকের বিরুদ্ধে করা হত্যা মামলায় আগামী সোমবার তাকে আদালতে নেয়া হবে জানা গেছে। তা সত্ত্বেও  প্রতিবাদের আগুন নেভেনি।

কৃষ্ণাঙ্গদের উপর পুলিশি অত্যাচারের বিরুদ্ধে গত দু’দিন ধরে বিক্ষোভ করছেন বিক্ষোভকারীরা। গতকাল নিউইয়র্কের বার্কলেস সেন্টারে কড়া নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যেও ঢুকে পড়ে বিক্ষুব্ধ জনতা।  নিউইয়র্ক একাকার প্রতিবাদী মিছিলে। ব্রুকলিনের রাস্তায় দাঁড় করানো বাসে কয়েকশো বিক্ষোভকারীদের তুলছে পুলিশ। বিভিন্ন শহরে চলে দোকান ভাঙচুর, পুলিশের গাড়িতে আগুন, থানা ভাঙচুর। আটলান্টাতে বেশ কিছু গাড়িতে আগুন ধরিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। যার মধ্যে একটি গাড়ি পুলিশের বলে জানা যায়।

এই পরিস্থিতির জন্য প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দায়ী বলে মনে করছেন অনেকে। ট্রাম্প সম্প্রতি টুইট বার্তায় বলেন, ‘লুটপাট চললে গুলি তো চলবেই’। হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে গতকাল ট্রাম্পের এই টুইটটি লুকিয়ে ফেলে  টুইটার। আজ পরিস্থিতির অবনতি হলে সুর নরম করে প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘নিহত কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তির পরিবারের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। ওরা সবাই খুব ভাল মানুষ।’  তবে এ নিয়ে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের নামে চলতে থাকা বিশৃঙ্খলা তিনি সহ্য করবেন না বলেও জানান ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের বর্ণবিদ্বেষী পুলিশের অত্যাচার নিয়ে সরব হলেও প্রবাদপ্রতিম মানবাধিকারকর্মী মার্টিন লুথার কিং জুনিয়রের কনিষ্ঠ কন্যা বার্নিস কিং আটলান্টাসহ গোটা দেশের প্রতিবাদীদের অহিংস পথে থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন ।

সূত্র: বিবিসি

অর্থসূচক/এসএস

এই বিভাগের আরো সংবাদ