করোনায় মারা গেলেন কপারটেকের নিরীক্ষক কাঞ্চিলাল

Kanchi-Lal.jpg

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট কাঞ্চিলাল দাস। গত বৃহস্পতিবার (২৮ মে) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

জানা গেছে, তিনি জ্বরের সঙ্গে ঠাণ্ডাজনিত সমস্যার কারণে গত ২৪ মে কাঞ্চিলাল দাসকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে সার্বক্ষণিক অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করতে ২৬ মে তাকে ঢামেকের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। বৃহস্পতিবার সেখানেই তার মৃত্যু ঘটে।

তার পরিবার সংশ্লিষ্ট একটি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।


অর্থসূচকে প্রকাশিত পুঁজিবাজার ও অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলো পাওয়া যাচ্ছে আমাদের ফেসবুক

গ্রুপ Sharebazaar-News & Analysis এ। গ্রুপে যোগ দিয়ে সহজেই থাকতে পারেন আপডেট।


কাঞ্চিলাল দাস এফসিএ নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান আহমেদ অ্যান্ড আখতার চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টসের একমাত্র ‘পার্টনার’ ছিলেন। গত বছর আইপিওতে আসা কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ নামের একটি কোম্পানির নিরীক্ষা প্রতিবেদনকে ঘিরে তিনি ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জসহ (ডিএসই) সংশ্লিষ্টরা কপারটেকের আর্থিক প্রতিবেদনে নানা অসঙ্গতি তুলে ধরে, যার অনেক তথ্যই ছিল প্রচণ্ড গোঁজামিল ও অবাস্তব তথ্যে পূর্ণ। এর প্রেক্ষিতে কোম্পানিটিকে তালিকাভুক্ত করার বিষয় নিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে ডিএসইর টানাপোড়েন তৈরি হয়। আইপিও শেষ হওয়ার প্রায় পাঁচ মাস পর বিএসইসির নির্দেশে কোম্পানিটিকে তালিকাভুক্ত করতে বাধ্য হয় দুই স্টক এক্সচেঞ্জ।

Kanchi-Lal.jpg

অন্যদিকে গত বছরের ৪ জুলাই ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস, বাংলাদেশ (আইসিএবি) আহমেদ অ্যান্ড আখতারের লাইসেন্স নবায়ন না করায় নিরীক্ষা কাজের যোগ্যতা হারায় প্রতিষ্ঠানটি। পরিস্থিতি অনেক বিরূপ হয়ে পড়ায় শেষ পর্যন্ত বিএসইসিও কোম্পানিটিকে তাদের স্বীকৃত নিরীক্ষকদের প্যানেল থেকে বাদ দেয়।

বিএসইসির বিদায়ী চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেনের মেয়াদে রহস্যজনকভাবে আইপিওতে তিনটি নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠানের রাজত্ব কায়েম হয়েছিল। তারই একটি হচ্ছে- আহমেদ অ্যান্ড আখতার চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্সি।