বিশ্বের প্রবীণতম ব্যক্তি ১১২ বছর বয়সে মারা গেছেন
শনিবার, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বিশ্বের প্রবীণতম ব্যক্তি ১১২ বছর বয়সে মারা গেছেন

মহামারি স্প্যানিশ ফ্লু এবং দুই বিশ্বযুদ্ধে বেঁচে যাওয়া ১১২ বছর বয়স্ক বব ওয়েটন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হননি। বিশ্বের প্রবীণতম মানুষটি ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। গতকাল ২৮ মে অলটন শহরে নিজের ফ্ল্যাটে ঘুমের মধ্যেই মারা যান তিনি।

কয়েকদিন আগেই ১১২ বছর পূর্ণ হয়েছিল বব ওয়েটনের। বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ হিসেবে গিনেস ওয়ার্ল্ড বুকে ববের নাম আসে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে। বিশ্বজুড়ে স্প্যানিশ ফ্লু মহামারিতে ১৯১৮ সালে ৫ কোটিরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। তখন বব ওয়েটনের বয়স ছিল মাত্র ১০ বছর। সে সময় ভাইরাসের ভয়াবহতা বোঝার বয়স তার ছিল না। বড় হয়ে বই পড়ে সেই মহামারির কথা জেনেছিলেন তিনি।

বৃটেনের হ্যাম্পশায়ার কাউন্টির অলটন শহরের প্রাক্তন শিক্ষক বব ওয়েটন সেই মহামারি সম্পর্কে বলেছিলেন, ‘ওই বয়সে আমি তেমন কিছু বুঝিনি। কারণ, আমার পরিবারের বা পরিবারের ঘনিষ্ঠ কেউ ওই রোগে মারা যায়নি।’ সেই মানুষটিই বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের ধ্বংসলীলা দেখে শিউরে ওঠেন।

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন বব বলেছেন, ‘বাঁচতে হলে ঠিক কী করতে হবে, তাই তো জানি না। পুরো পৃথিবীর অবস্থা কেমন যেন ঘোলাটে হয়ে যাচ্ছে। কী জানি শেষ পর্যন্ত কী হয়!’

এত বছর বেঁচে থাকার রহস্য প্রসঙ্গে ওয়েটন জানিয়েছিলেন, ‘কোন গোপন ফরমুলা আমার কাছে নেই। তবে আমি কখনও বৃদ্ধ হতে চাইতাম না, মৃত্যুর কথা ভাবতাম না।’ বিশ্বাস করতেন, বইপড়া থেকে শুরু করে উইন্ডমিলের মডেল তৈরিসহ নানা বিষয়ে আগ্রহ তাকে এতদিন সচল ও সক্রিয় রাখতে সাহায্য করেছে।

ঘনিষ্টজনেরা বব ওয়েটন সম্পর্কে বলেন, তিনি একজন অসাধারণ মানুষ ছিলেন। অনেক ঘটনারই সাক্ষী ছিলেন বিশ্বের প্রবীণতম এই মানুষটি। সুদীর্ঘ ১১২ বছরে শুধু বৃটেন নয়, সারা বিশ্বের নানা ঘটনা ও দুর্ঘটনার সাক্ষী হয়ে ছিলেন বব ওয়েটন। জীবদ্দশায় এখন পর্যন্ত তিনি বৃটিশ রাজ সিংহাসনে পাঁচ জনকে বসতে দেখেছেন। আর দেখেছেন ২৬ প্রধানমন্ত্রীর পালাবদল।

বব ওয়েটন তিন সন্তানের জনক। তার নাতি-নাতনির সংখ্যা ১০ এবং প্রপৌত্র-প্রপৌত্রী ২৫ জন। সূত্র: বিবিসি

অর্থসূচক/এসএস/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ