কুমিল্লায় অবাধে চলছে চুরি করা সিএনজি অটোরিকশা  
শনিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » চট্টগ্র্রাম

কুমিল্লায় অবাধে চলছে চুরি করা সিএনজি অটোরিকশা  

সিএনজি অটোরিকশা

কুমিল্লায় অবাধে চলছে চুরি করা সিএনজি অটোরিকশা

সরকারি ব্যবস্থাপনায় দেশে জ্বালানিসাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব সিএনজি অটোরিকশার আগমন শুরু হয় প্রায় এক যুগ আগে। ভারতীয় বাজাজ কোম্পানির তৈরি এই সিএনজি অটোরিকশার আমদানির পর থেকে সয়লাব ঘটে এ যানের।

এখন এ যানটিকে অবৈধ আয়ের উৎস হিসেবে বেছে নিয়েছেন জেলা ও উপজেলার রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। ফলে ক্রমশই দুর্নীতি ও অবৈধ কর্মকাণ্ড বেড়ে গেছে এ সেক্টরে।

কুমিল্লা মহানগরীসহ জেলার ১৫টি উপজেলায় প্রায় ৫ হাজারেরও বেশি সিএনজি অটোরিকশা চলাচল করছে। যার দুই-তৃতীয়াংশেরই নেই বিআরটির রেজিস্ট্রেশন নম্বর। আর এক তৃতীয়াংশ সিএনজি অটোরিকশার নেই ক্রয় সংক্রান্ত কাগজপত্র। এই কাগজপত্রবিহীন সিএনজি অটোরিকশাগুলোর বেশিরভাগই চুরি এবং সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ভারত থেকে অবৈধ পথে প্রবেশ করা, যাকে এলাকায় ‘টানা বলে চিহ্নিত।

এসব সিএনজি অটোরিকশার নেই বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথোরেটির (বিআরটিএ) রেজিস্ট্রেশন নম্বর। রেজিস্ট্রেশনবিহীন ওই সিএনজি অটোরিকশা নম্বরের প্ল্যাইটে অন-টেস্ট, এ.এফ.আর লেখার পাশাপাশি (কুমিল্লা-থ…) এমন সমাপ্ত নম্বর লিখে চলছে বছরের পর পর। প্রশাসনের কোনো নজর না থাকায় এর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে।

কুমিল্লা মহানগরীতে চলাচলরত বেশিরভাগ সিএনজি অটোরিকশার রেজিস্ট্রেশন নম্বর থাকলেও মহানগরীর বাহিরে উপজেলাগুলোতে তার বিপরীত চিত্র দেখা যায়।

সম্প্রতি কুমিল্লাসহ বিভিন্নস্থানে সিএনজি অটোরিকশা চুরি ও ছিনতাইয়ের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। চোর ও ছিনতাইকারীরা আন্তঃজেলা চোর-ছিনতাইকারী চক্রের সাথে জড়িত হয়ে ওই চুরি ও ছিনতাইকৃত সিএনজি অটোরিকশাগুলো আবার এক জেলা থেকে অন্য জেলায় বিক্রি করে দিচ্ছে। এসব চুরি ও ছিনতাইকৃত সিএনজিগুলোর নম্বর মুছে চলছে মহাসড়কসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায়।

এর মধ্যে শুধুমাত্র মহাসড়কের ময়নামতি সেনানিবাস এলাকা থেকে ইলিয়টগঞ্জ পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার এলাকা, চান্দিনা-দেবিদ্বার, চান্দিনা-মাধাইয়া, চান্দিনা-ময়নামতি, চান্দিনা-বদরপুর, চান্দিনা-রামমোহন, চান্দিনা-খোসবাস, চান্দিনা-বরুড়া, মাধাইয়া-নবাবপুর, মাধাইয়া-ইলিয়টগঞ্জসহ চান্দিনা উপজেলায় বিভিন্নরুটে চলাচল করছে ৩ শতাধিক সিএনজি অটোরিকশা। যার অধিকাংশগুলোতেই নেই রেজিস্টেশন নম্বর।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, মহাসড়কের চান্দিনার বাগুর বাসস্টেশন থেকে ক্যান্টনম্যান্ট, মাধাইয়া, বরুড়ার খোসবাস, বদরপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিন চলছে শত শত সিএনজি। সেই সিএনজিগুলোর প্রায় অর্ধেকেরও বেশি নম্বরবিহীন এবং নম্বর অষ্পষ্ট। নম্বর ছাড়া সিএনজি থাকার কারণে অপরাধীদের অপকর্মের হারও ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

নম্বরবিহীন এক সিএনজি ড্রাইভার মো. আবুল হোসেন জানান, ‘আমি পাঁচ মাস যাবৎ এই রোডে সিএনজি চালাই কখনও সমস্যা হয়নি। মাঝে মধ্যে কিছু টাকা দিলেই চলে’। টাকা  কাকে দেন জানতে চাইলে তিনি এর কোনো উত্তর দেননি।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা হাইওয়ে পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম পিপিএমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

কেএফ

এই বিভাগের আরো সংবাদ