আক্রান্তে দ্বিতীয় ব্রাজিল, আরও ২১ হাজার শনাক্ত

Health workers and patients remain in the Intensive Care Unit for COVID-19 of the Gilberto Novaes Hospital in Manaus, Brazil. (Photo by MICHAEL DANTAS / AFP)

মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের অন্যতম হটস্পট এখন ব্রাজিল। গত চব্বিশ ঘণ্টায় নতুন ২১ হাজার ৪৮ জন আক্রান্ত নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্ত দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৩০ হাজার ৮৯০ জন। তবে বিশেষজ্ঞদের দাবি, ব্রাজিলে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের চিত্র আরও ভয়াবহ। টেস্টের সংখ্যা বাড়ানো হলে দেশটিতে মোট আক্রান্ত বর্তমান সংখ্যা থেকে ১৫ গুণ বা এর বেশি বাড়তে পারে।

ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য তুলে ধরে বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, বৈশ্বিক আক্রান্তের তালিকায় রাশিয়াকে টপকে এরই মধ্যে দ্বিতীয়স্থানে উঠে এসেছে দেশটি। তাদের ওপরে আছে কেবল যুক্তরাষ্ট্র, ১৬ লাখ। তৃতীয়স্থানে থাকা রাশিয়ার আক্রান্ত ৩ লাখ ২৬ হাজার।

গত চব্বিশ ঘণ্টায় ব্রাজিলে কভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়েছে। নতুন মৃত্যু ১,০০১ জন। এই নিয়ে চার দিনের মধ্যে তিন দিনই এক হাজারের বেশি মৃত্যু দেখল লাতিন আমেরিকার দেশটি।

এদিকে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, দক্ষিণ আমেরিকা এখন করোনা ভাইরাস মহামারির ‘নতুন এপিসেন্টারে’ পরিণত হয়েছে।

ডব্লিউএইচও জরুরি পরিস্থিতি বিষয়ক পরিচালক মাইক রায়ান বলেন, এই অঞ্চলের অধিকাংশ দেশ নিয়েই উদ্বেগ রয়েছে। তবে এই মুহূর্তে ব্রাজিলই সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত।

মৃত্যুর সংখ্যাও প্রতিদিন বাড়ছে দেশটিতে। নতুন এক হাজার ছাড়ানো মৃত্যু নিয়ে মৃতের মোট সংখ্যা ২১ হাজার ছাড়িয়েছে। এই তালিকায় ষষ্ঠস্থানে আছে দেশটি। ওপরে থাকা পাঁচটি দেশ- যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইতালি, স্পেন ও ফ্রান্স।

আক্রান্ত-মৃত্যু ব্রাজিলে বার বাড়ন্ত থাকলেও এটাকেই পিক পয়েন্ট ধরা হচ্ছে না। জুনের দিকে সংক্রমণের মাত্রা সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই উদাসীনতা ভাব দেখা গেছে ২১ কোটি জনসংখ্যার দেশ ব্রাজিলে।

অতি ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো করোনাকে বরাবরই ‘হালকা ফ্লু’র সঙ্গে তুলনা করে আসছেন। রাজ্য সরকার ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষ নাগরিকদের ঘরে থাকার নির্দেশনারও সমালোচনা করে আসছেন তিনি। তার মতে, এসবে দেশের অর্থনীতির অহেতুক ক্ষতি হচ্ছে।

অর্থসূচক/কেএসআর