শ্রীলঙ্কায় মুসলমানদের লাশও পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে
মঙ্গলবার, ২রা জুন, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

শ্রীলঙ্কায় মুসলমানদের লাশও পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে

করোনাভাইরাস দুর্যোগে শ্রীলঙ্কার মুসলমানদের উপর আরেক দুর্যোগ নেমে এসেছে। দেশটিতে করোনা কালে মুসলমানদের প্রতি ঘৃণা ও নির্যাতন বেড়ে গেছে। আর তাতে প্রধান ভূমিকা রাখছে খোদ দেশটির সরকার।


প্রিয় পাঠক,করোনাভাইরাস সংক্রান্ত দেশ-বিদেশের নির্বাচিত নিউজ ও টিপস এখন থেকে পাওয়া যাবে আমাদের

ফেসবুক গ্রুপ Corona: News & Tips এ। গ্রুপটিতে যোগ দিয়ে সহজেই থাকতে পারেন আপডেট।


বৌদ্ধ ধর্মপ্রধান এই দেশে জোর করে সংখ্যালঘু মুসলিমদের মরদেহ পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে। শুরুটা হয়েছিল করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মরদেহ দিয়ে। অবশ্য তখনও মুসলমানরা তীব্র আপত্তি জানিয়েছিল। কিন্তু সরকার করোনা নিয়ন্ত্রণের যুক্তিতে ওই আপত্তিতে কর্ণপাত করেনি। কিন্তু এখন করোনা নিশ্চিত না হয়েও মুসলিম কেউ মারা গেলেই তার মরদেহ পুড়িয়ে ফেলতে বাধ্য করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

অথচ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নির্দেশনায় বলা হয়েছে, করোনা মৃতদের মাটিতে সমাধিস্ত করা (কবর দেওয়ায়) কোনো সমস্যা নেই। কবর দেওয়ার পর মৃতদেহ থেকে কোনো রকম  সংক্রমণের আশংকা থাকে না। তাছাড়া কবর দেওয়ার আগে মরদেহ জীবাণুমক্ত করার ব্যবস্থাও আছে।

খবর আল জাজিরা ও কলম্বো পেজ এর

জানা গেছে, বায়োলজিক্যাল ঝুঁকির অজুহাতে  গত এপ্রিল মাসের শুরু থেকে অন্যান্যদের পাশাপাশি মুসলমানদের মৃতদেহও পুড়িয়ে ফেলতে শুরু করে শ্রীলঙ্কা। তখন থেকে দেশটির মুসলমান সম্প্রদায় সরকারের কাছে তাদের আপত্তির কথা জানিয়ে আসছে।

শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোর জুবাইর ফাতিমা রিনোসার শোকগ্রস্ত পরিবার ন্যায়বিচার এবং ব্যাখ্যা দাবি করেছেন; ৪৪ বছর বয়সী এই নারীর শবদাহ সম্পন্ন হওয়ার দু’দিন পর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসায়। রিনোসার চার সন্তানের একজন মোহাম্মদ সাজিদ বলেছেন, দাফনের ইসলামিক ঐতিহ্য উপেক্ষা করে সব করোনা রোগীর মরদেহ পোড়ানোর বিষয়ে শ্রীলঙ্কার সরকারের বিতর্কিত বিধান অনুযায়ী তার মায়ের শবদাহ সম্পন্ন হয় গত ৫ মে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটিতে এ পর্যন্ত সাতজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। তাদের মধ্যে তিনজন মুসলমানও রয়েছে। তবে তাদের আত্মীয়-স্বজনদের প্রচণ্ড বিরোধিতা সত্ত্বেও তাদের মরদেহ পুড়িয়ে ফেলা হয়।

ইসলাম ধর্মের রীতি অনুযায়ী, কোনো মুসলিম মারা গেলে তাকে গোসল ও জানাজা শেষে কবর দিতে হবে। এমনকি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও) বলেছে, করোনায় মৃতদের মরদেহ পুড়িয়ে ফেলা বা মাটিতে সমাধিস্থ করা যাবে।

তবে ডব্লিউএইচও’র এই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এককভাবে মুসলমানদের মরদেহও পুড়িয়ে ফেলছে শ্রীলঙ্কা সরকার। দেশটিতে এ পর্যন্ত দুইশোর অধিক করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা গেছে। এই অবস্থায় দেশজুড়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য কারফিউ জারি করেছে সরকার।

এই বিভাগের আরো সংবাদ