ঈদের কেনাকাটায় লাগবে নিবন্ধন, মিলবে নির্দিষ্ট সময়
মঙ্গলবার, ২৬শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ঈদের কেনাকাটায় লাগবে নিবন্ধন, মিলবে নির্দিষ্ট সময়

সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী আড়ং সীমিত পরিসরে তাদের ২১ আউটলেটের মধ্যে ১৭টি আউটলেট খুলবে। আগামীকাল রোববার (১০ মে) থেকে অনলাইনে নাম নিবন্ধন করেই একজন ক্রেতা আড়ংয়ে প্রবেশের সুযোগ পাবেন। আর কেনাকাটার জন্য সময় পাবেন এক ঘণ্টা। তবে পোশাক ট্রায়ালের সুযোগ পাবেন না।

আজ শনিবার (০৯ মে) সকালে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ব্র্যাক সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজেসের ম্যানেজিং ডিরেক্টর তামারা আবেদ। এসময় ব্র্যাকের কমিউনিকেশন এবং আউটরিচ বিভাগের পরিচালক মৌটুশি কবির ও আড়ংয়ের চিফ অপারেটিং অফিসার আশরাফুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

তামারা আবেদ বলেন, ভিড় ব্যবস্থাপনার জন্য আমরা অনলাইন বুকিং সিস্টেম চালু করেছি। যতজন ক্রেতাকে প্রবেশের সুযোগ দিতে পারবো ততটুকু স্লট কিন্তু আমরা অনলাইনে বরাদ্দ রেখেছি। শপিংয়ে আসার আগে অনলাইনে গিয়ে আউটলেট সিলেক্ট করে টাইম স্লট বুক করতে হবে। বুকিং কনফারমেশন হিসেবে মোবাইলে এসএমএস আসবে। যা আড়ং আউটলেটে প্রবেশের সময় দেখাতে হবে। তাছাড়া প্রবেশের সময় শরীরের তাপমাত্রার মাপার ব্যবস্থা তো থাকছেই।

টাইম স্লট নির্ধারণের বিষয়ে তিনি বলেন, এক একটি আউটলেটের বর্গফুট অনুযায়ী সাইজ ৩ ফুট মেইন্টেইন করে এক একটি আউটলেতে কত বর্গফুট জায়গা আছে তা হিসাব করে, কতজন লোককে ধারণ করা যাবে সেটা নির্ধারণ করেছি। সেখান থেকে বাদ দিয়েছি আমাদের স্টাফ কতজন থাকবে সেই সংখ্যা। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা এই সময়টিকে আমরা ঘণ্টা হিসেবে ভাগ করেছি। আমাদের হাতে প্রতিদিন আছে ৬টি স্লট। প্রত্যেক ক্রেতাকে আমরা এক ঘণ্টা সময় দিচ্ছি। এছাড়া বিভিন্ন সেকশনে আমরা নির্দিষ্ট দূরত্বে লাইনে দাড়িয়ে সামগ্রী নেওয়ার ব্যবস্থা রেখেছি। যদি কোনও সেকশনে লোক বেশি হয়ে যায় সেক্ষেত্রে সেখান থেকে দু’জন করে বের হওয়ার পর আরও দু’জন করে প্রবেশের সুযোগ দেওয়া হবে। আউটলেটের ভেতরে নির্দিষ্ট সেকশনে যাতে অতিরিক্ত লোক সমাগম না হয় আমরা সেই ব্যবস্থাও নিয়েছি। আপাতত ট্রায়ালরুম বন্ধ থাকবে। ক্রেতারা আপাতত পরিবর্তনের সুযোগ পাবেন না। পরিস্থিতি একেবারের নরমাল হয়ে গেলে পরিবর্তনের সুযোগ পাবেন তারা। তখন থেকে ৩০ দিন সময় পাবেন এখনকার কেনা পণ্য পরিবর্তন করার।

তামারা আবেদ বলেন, আমরা অনেক চিন্তা-ভাবনা করেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কারণ আড়ংয়ের সঙ্গে প্রায় ৬৫ হাজার কারুশিল্পী জড়িত আছেন। তাদের জীবিকা আমাদের ওপর নির্ভরশীল। স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ে আমরা সবাই অবগত। আপনারা জানেন আড়ং কোনও ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান নয়, এটি ব্র্যাকের একটি প্রতিষ্ঠান। এটার মুনাফা সম্পূর্ণটাই আড়ংয়ের বিনিয়োগ এবং সামাজিক কল্যাণে ব্যবহৃত হয়। সুতরাং এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে এখানে কোনও ব্যক্তির লাভবান হওয়ার কিছুই নেই।

আউটলেট খোলা প্রসঙ্গে তামারা আবেদ বলে, যেসব এলাকায় শপিং মলের ভেতর আউটলেট আছে সেগুলো খোলা হবে না। যেসব আউটলেট সম্পূর্ণ আমাদের নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আছে সেগুলো খুলতেই আমরা সাচ্ছন্দ্যবোধ করছি। স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়ে যেসব নির্দেশনা আছে সেগুলো আমরা মাথায় রেখেই ব্যবস্থা করেছি।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ