সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন বেড়েছে ১২ শতাংশ
সোমবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পুঁজিবাজার

সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন বেড়েছে ১২ শতাংশ

dse

ডিএসই লোগো

আগের সপ্তাহের চেয়ে লেনদেনের পরিমাণ বেড়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)। সব ধরণের মূল্য সূচকের পতন হলেও লেনদেন বেড়েছে ১২ দশমিক ৯৭ শতাংশ। পরো সপ্তাহের দুই কার্যদিবস লেনদেন বেড়েছে। আর তিন কার্যদিবস লেনদেন কমেছে। তবুও সপ্তাহের শেষে লেনদেনের পরিমাণ বেড়ে যায়।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর বাজেট সংক্রান্ত বক্তব্য দেয়। বিনিয়োগকারীদের আশা ছিল তার এই বক্তব্য পুঁজিবাজার বান্ধব হবে। কিন্তু তা হয় নি। বরং তিনি বলেন এবারের বাজেটে কালো টাকা সাদা করার কোন সুযোগ থাকবে না। সেকারণে বৃহস্পতিবার পুঁজিবাজারে ওপর এই প্রভাব পড়ে। সাথে সাথে সূচক ও লেনদেন কমে যায়।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই ব্রড সূচক বা প্রধান সূচক তিন কার্যদিবস বাড়ে। আর দুই কার্যদিবস কমে। তবুও সপ্তাহের শেষে সব মূল্য সূচকের পতন হয়। আগের সপ্তাহের চেয়ে ২১৯ কোটি ৬৬ লাখ টাকার লেনদেন বেড়েছে ডিএসইতে। গত সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৯১৩ কোটি ৩২ লাখ ৪১ হাজার ২৯ টাকার। এর মধ্যে ‘এ’ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৪ দশমিক ৮২ শতাংশ। ‘বি’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩ দশমিক ৫২ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরির ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ এবং ‘জেড’ ক্যাটাগরির ৪ দশমিক ১০ শতাংশ।

ডিএসই ব্রড সূচক বা প্রধান সূচক কমেছে দশমিক ২৬ শতাংশ বা ১১ দশমিক ৭৪ পয়েন্ট। এই সূচক সপ্তাহের প্রথম দিনে ছিল ৪ হাজার ৫৬৬ পয়েন্ট। আর সপ্তাহ শেষে অবস্থান করে ৪ হাজার ৫৫৫ পয়েন্টে। আর শরীয়াহ সূচক বা ডিএসইএস সূচক কমেছে দশমিক ৫২ শতাংশ বা ৫ দশমিক ২৮ পয়েন্ট। ১ হাজার ১৮ পয়েন্ট থেকে কমে এই সূচক দাঁড়ায় ১ হাজার ১২ পয়েন্টে। এছাড়া ডিএসই৩০ সূচক কমেছে দশমিক ৩৫ শতাংশ বা ৫ দশমিক ৯২ পয়েন্ট। ডিএসই৩০ সূচক ১ হাজার ৬৭১ পয়েন্ট থেকে কমে দাঁড়ায় ১ হাজার ৬৬৬ পয়েন্টে।

পুরো সপ্তাহে মোট ৩০৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়। এর মধ্যে ১৬৩টি কোম্পানির শেয়ারের দর বেড়েছে। ১১৪টি কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির। লেনদেনে অংশ নেয় নি তিনটি কোম্পানি।

অর্থসূচক/এমআরবি/

এই বিভাগের আরো সংবাদ