অপ্রাপ্তবয়স্কদের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করল সৌদি
সোমবার, ১৪ জুলাই, ২০২০
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

অপ্রাপ্তবয়স্কদের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করল সৌদি

বেত্রাঘাত বাতিল করার ঠিক দুইদিন পরে অপ্রাপ্তবয়স্কদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার বিধান তুলে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। দেশটির বাদশাহ সালমানের জারি করা রাজ-ডিক্রির বরাত দিয়ে সেখানকার মানবাধিকার কমিশন (এইচআরসি) এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিবৃতিতে সৌদি আরবের সরকার সমর্থিত মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি আওয়াদ আলাওয়াদ বলেছেন, এক রাজকীয় ডিক্রির মাধ্যমে কিশোর অপরাধের জন্য মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর বদলে কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে সর্বোচ্চ ১০ বছরের সাজা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই ডিক্রির মাধ্যমে আমরা আরও আধুনিক দণ্ডবিধি প্রতিষ্ঠা করতে পারব।

অপ্রাপ্তবয়স্কদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার কারণে অনেক আগে থেকেই মানবাধিকার সংগঠনগুলো সৌদির সমালোচনা করে আসছে। কিন্তু এসব কথা এতদিন কানেই তোলেনি সৌদি। কিন্তু নতুন করে দেশজুড়ে সংস্কার আনার পদক্ষেপের অংশ হিসেবে এবার এই বিধান তুলে নেওয়া হলো।

জাতিসংঘের শিশু অধিকার বিষয়ক সনদে বলা হয়েছে, অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশুদের দ্বারা সংঘটিত অপরাধের জন্য তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া যাবে না। মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ মানবাধিকার রক্ষায় বিশ্বে সবচেয়ে খারাপ রেকর্ডধারী দেশগুলোর অন্যতম সৌদি।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল তাদের সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদনে বলেছে, ইরান ও চীনের পরে সৌদি আরবে বিশ্বের সব চেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। এছাড়া ২০১৯ সালে সৌদিতে ১৮৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। এদের কমপক্ষে একজন কিশোর অবস্থায় করা অপরাধের জন্য সাজা পেয়েছেন।

উল্লেখ্য, যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান নিয়োগ পাওয়ার পর ঘোষিত সংস্কার কার্যক্রমের অংশ হিসেবে নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার পাশাপাশি মাঠে পুরুষের সঙ্গে বসে খেলা দেখা, সিনেমা দেখার ওপর নিষেধাজ্ঞা বাতিল করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যাওয়া, চাকরিতে যোগদান, এমনকি অস্ত্রোপচার করার জন্যও আগে নারীদের পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি নিতে হতো। সেই বিধিও রদ করা হয়। পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বাল্যবিবাহ ঠেকানোরও।

অর্থসূচক/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ