বঙ্গবন্ধুর খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ কারাগারে
রবিবার, ৭ই জুন, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বঙ্গবন্ধুর খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ কারাগারে

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম জুলফিকার হায়াৎ তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর বেলা ১টা ৫ মিনিটের দিকে তাকে প্রিজন ভ্যানে করে কেরানীগঞ্জে অবস্থিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

আদালতের ধানমন্ডি থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) উপ-পরিদর্শক আশরাফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আসামি মাজেদকে ধানমন্ডি থানার ফৌজদারি কার্যবিধি ৫৪ ধারার (সন্দেহমূলক) মামলায় গ্রেফতার দেখানোর আবেদনসহ কারাগারে আটক রাখার আবেদন করা হয়েছে। বিচারক আবেদন মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) বেলা ১২টার পরে তাকে আদালতে হাজির করা হয়। আসামি মাজেদের পক্ষে কোনও আইনজীবী ছিলেন না।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হেমায়েত উদ্দিন খান হিরণ বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যান মামলায় মৃত্যুলদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মাজেদকে ফৌজদারী কার্যবিধির ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যামে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। দণ্ডপ্রাপ্ত হওয়ায় এই মামলায় তাকে গ্রেফতার না দেখানো পর্যন্ত কারাগারে রাখার আবেদন করা হয়েছিল গ্রেফতারকারী সংস্থা কাউন্টার টেরোরিজমের পক্ষ থেকে। রাষ্ট্রপক্ষে আবেদনের বিষয়ে শুনানিতে আমরা বলেছি, এই আসামি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি। তিনি মৃত্যুাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। তার দণ্ড উচ্চ আদালতে বহাল রয়েছে। এই মামলায় গ্রেফতার না দেখানো পর্যন্ত তাকে কারাগারে রাখা হোক। শুনানি শেষে আদালত আবেদন মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

তিনি আরও বলেন, আসামি মাজেদকে গ্রেফতার দেখানোর বিষয়ে খণ্ড নথি দণ্ড প্রদানকারী আদালতে (ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত) পাঠানোর আদেশ হয়েছে। সেই আদালত থেকেই তাকে বঙ্গবন্ধু হত্যাে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হবে।

এর আগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার (৬ এপ্রিল) রাতে মিরপুর সাড়ে ১১ নম্বর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ সদর দফতরের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, গ্রেফতারের আগে মাজেদ কোথায় ছিলেন তা পুলিশের জানা ছিল না। তবে করোনা পরিস্থিতিতে তাকে সংশ্লিষ্ট দেশ থেকে বাংলাদেশে পুশব্যাক করা হয়েছিল। এ খবর পেয়ে মিরপুর সাড়ে ১১ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় আব্দুল মাজেদসহ ১২ আসামিকে ২০০৯ সালে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশীদ খান, বজলুল হুদা, এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ ও মুহিউদ্দিন আহমেদের ফাঁসি ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি কার্যকর হয়।রায় কার্যকরের আগে ২০০২ সালে পলাতক অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে মারা যান আসামি আজিজ পাশা।

আব্দুল মাজেদ গ্রেফতার হওয়ার পর বর্তমানে পলাতক রয়েছেন পাঁচজন। পলাতক আসামিরারা হলেন খন্দকার আবদুর রশীদ, শরিফুল হক ডালিম, এস এইচ এম বি নূর চৌধুরী, এ এম রাশেদ চৌধুরী ও মোসলেম উদ্দিন। তারা সবাই সাবেক সেনা কর্মকর্তা। তারা বিভিন্ন দেশে পলাতক পালিয়ে আছেন।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ