করোনা মোকাবিলায় মোদির 'নতুন থিওরি'
সোমবার, ১লা জুন, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

করোনা মোকাবিলায় মোদির ‘নতুন থিওরি’

মহামারি করোনা ভাইরাসের এ ভয়াবহতার মধ্যেও থেমে নেই ভারতের উগ্রবাদী ও অন্ধবিশ্বাসী হিন্দু সংগঠনের হাস্যকর কর্মকাণ্ড। করোনা রুখতে কিছুদিন আগেই দিল্লিতে গো-মূত্র পার্টির আয়োজন করে হিন্দু মহাসভা। এরপর রাষ্ট্র ঘোষিত এক দিনের জনতার কারফিউয়ের মধ্যে বিকাল ৪টায় সবাইকে থালা-বাসন বাজানোর পরামর্শ দেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ নিয়ে ভারতজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা ও হাস্যরসের সৃষ্টি হয়।

করোনা ভাইরাস রুখতে এবার নতুন এক পরামর্শ নিয়ে হাজির হলেন নরেন্দ্র মোদি। শুক্রবার (৩ এপ্রিল) এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশের সব মানুষের প্রতি নতুন এক বার্তা দিলেন তিনি। আগামী ৫ এপ্রিল (রোববার) রাত ৯টায় ঘরের সব আলো বন্ধ করে ঘরের দরজা বা বারান্দায় দাঁড়িয়ে ৯ মিনিটের জন্যে মোমবাতি, প্রদীপ, টর্চ বা মোবাইলের ফ্ল্যাশ লাইট জ্বালানোর অনুরোধ করলেন মোদি। খবর এনডিটিভির।

দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, আগামী রোববার (৫ এপ্রিল) রাত ৯টায় আমি আপনাদের কাছ থেকে ৯ মিনিট সময় চাইছি। ওই সময়ে বাড়ির সব আলো বন্ধ করে ঘর বা বারান্দায় দাঁড়িয়ে মোমবাতি, প্রদীপ বা ফোনের ফ্ল্যাশলাইট জ্বালান। এতেই মহাশক্তির প্রকাশ ঘটবে। এই শক্তির মাধ্যমেই প্রকাশ পাবে আমরা কেউ একা নই, একসঙ্গে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আছি।

২৪ মার্চ দেশ জুড়ে ২১ দিনের লকডাউন করার ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী মোদি, তার ঠিক ৯ দিন পরে এটাই দেশবাসীর প্রতি তার প্রথম বার্তা।

এর আগে ভারতে করোনা মহামারী ক্রমশই মারাত্মক উদ্বেগের কারণ হয়ে ওঠার পর দু-দু’বার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন তিনি। তার প্রথম ভাষণে, তিনি একদিনের জন্যে জনতা কারফিউ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং ২৪ মার্চ দ্বিতীয় ভাষণে তিনি করোনার বিস্তার রোধে গোটা দেশে লকডাউন চালু করার ঘোষণা দেন।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী মোদি সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেও এক বৈঠক করেন এবং লকডাউন পর্ব শেষ হওয়ার পরে জনগণের জীবনযাত্রা যাতে সুরক্ষিত থাকে তার জন্যে একটি বিশেষ পরিকল্পনা নেওয়ার কথা বলেন তিনি। করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে সব রাজ্যকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে ভারতে ২১ দিনের লকডাউন চলার সময়েও ক্রমশ করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বর্তমানে ভারতে মোট ১ হাজার ৯৬৫ জন মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, যার মধ্যে আবার ৫০ জনের মৃত্যুও হয়েছে।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ