করোনা চিকিৎসায় জাপানি ওষুধের চূড়ান্ত ট্রায়াল
সোমবার, ২৫শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

করোনা চিকিৎসায় জাপানি ওষুধের চূড়ান্ত ট্রায়াল

মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ সমস্ত বিশ্বকে নাড়া দিয়েছে। এই রোগের কোন প্রতিষেধক না থাকায় এটি মানুষের জন্য ভীষণ বিধ্বংসী হয়ে উঠেছে। বিশ্বের অনেক দেশ এর প্রতিষেধক তৈরিতে তৎপর। অনেক দেশে অন্য রোগের ওষুধও করোনা আক্রান্তের উপর প্রয়োগ করতে দেখা গেছে। ফ্লু-জাতীয় রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত জাপানে তৈরি একটি ওষুধ চীনে করোনা রোগীর উপর প্রয়োগ করা হয়। করোনা আক্রান্তের উপর আভিগান নামের এই ওষুধটি প্রয়োগে চমকপ্রদ ফলাফল পাওয়া যায়। এই ফলাফলের ভিত্তিতে আভিগানের চূড়ান্ত ধাপের ট্রায়াল শুরু করেছে জাপান।

আভিগানের জেনেরিক নাম ফ্যাভিপিরাভির। ওষুধটি জাপানের ফুজিফিল্মের সহযোগী প্রতিষ্ঠান টোয়ামার রাসায়নিক শাখার তৈরি। সাধারণ ঠান্ডা-সর্দিতে এই ওষুধ জাপানে আগে থেকেই অনুমোদিত। চীনে করোনা ভাইরাস অক্রান্ত রোগীর উপর এই ওষুধ বেশ ভালো কাজ করেছিল। এই ওষুধে কোভিড-১৯ সংক্রামিত রোগীরা অন্যদের তুলনায় দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠেন।

ইতোমধ্যে ফ্যাভিপিরাভিরের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ হয়েছে। জাপানে এর আগে করা দুই ধাপের ট্রায়ালে দেখা গেছে, এই ওষুধ রোগীদের সুস্থ হওয়া ত্বরাণ্বিত করে।

ওষুধটির প্রথম দুই ট্রায়ালের সঙ্গে ফুজি ফিল্ম যুক্ত না থাকলেও তৃতীয় ধাপে ট্রায়ালের আগে ফুজি ফিল্ম এক বিবৃতিতে জানায়, আশা করা যায় নতুন করোনা ভাইসের ওপর আভিগান প্রভাব ফেলতে পারবে।

আজ বুধবার (১ এপ্রিল) কোম্পানির এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, জুনের শেষে ১০০ জন রোগীর ওপর এই ওষুধের পরীক্ষামূলক ট্রায়াল হবে। তিনি বলেন, তথ্য সংগ্রহ করে বিশ্লেষণের পর আমরা অনুমোদনের জন্য আবেদন করব। হালকা নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ২০ থেকে ৭৪ বছর বয়সী রোগীদের উপর এই ওষুধটি প্রয়োগ করা হবে।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে গত শনিবার বলেন, তার সরকার নতুন এই ভাইরাসের চিকিৎসা হিসেবে আভিগানের আনুষ্ঠানিক অনুমোদনের প্রক্রিয়া শুরু করবে। এরপরই তৃতীয় ধাপে ট্রায়ালের ঘোষণা এল।

আভিগান ওষুধকে করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় ব্যবহারের দ্রুত অনুমতি দেওয়ার চেষ্টা করছে জাপান। ইতোমধ্যে অনেক দেশ এই ওষুধ নিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

অর্থসূচক/এসএস/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ