করোনা মোকাবেলায় সাত মাসের বেতন দিলেন এরদোগান 
রবিবার, ৩১শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

করোনা মোকাবেলায় সাত মাসের বেতন দিলেন এরদোগান 

মহামারি করোনা ভাইরাসের বিস্তারে সমগ্র বিশ্ব কোনঠাসা। দেশে দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না।  তবে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে নিজেদের দেশকে নিরাপদ রাখতে প্রতিনিয়ত লড়াই করে যাচ্ছেন আক্রান্ত দেশের রাষ্ট্রপ্রধানেরা। এবার এই ভাইরাস ঠেকানোর যুদ্ধে তহবিল সংগ্রহে সাত মাসের বেতন দান করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান।

মহামারি মোকাবিলায় দেশজুড়ে ন্যাশনাল সলিডারিটি ক্যাম্পেইনেরও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। গতকাল ৩০ মার্চ সোমবার এ ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবেই বেতন দান করলেন এই প্রেসিডেন্ট।

প্রেসিডেন্ট এরদোগান জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে  বলেন, ব্যক্তিগতভাবে আমার সাত মাসের বেতন দানের মাধ্যমে এই প্রচারণা শুরু করছি।

তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সি জানিয়েছে, এরদোগানের মন্ত্রিসভার সদস্য এবং দেশটির আইনপ্রণেতারাও ইতোমধ্যেই এ তহবিলে ৫ দশমিক ২ মিলিয়ন তুর্কী লিরা দান করেছেন। করোনা মোকাবিলায় গৃহীত পদক্ষেপে দেশের নিম্ন আয়ের মানুষ অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়েছে। তাদের সহায়তা দেওয়াই এই কর্মসূচির  লক্ষ্য বলে জানান এরদোগান।

ভাইরাসটি যাতে না ছড়ায় সেই লক্ষ্যে দেশটির রাজধানী আঙ্কারায় স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, ক্যাফে, বার ইত্যাদি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানগুলো বাতিল করা হয়েছে। স্থানীয় গভর্নরের অনুমতি ছাড়া এক শহর থেকে অন্য শহরে যাওয়া নিষেধ। পিকনিক স্পট, প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কেবল অতি প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিক্রি হবে। ফল ও শাকসবজি প্যাকেটজাত করে রাখতে হবে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত পোশাক, খেলনা, ব্যাগ ইত্যাদি বিক্রি বন্ধ থাকবে।

সরকারি এই নির্দেশনা মানার বিষয়ে এই সময়ে জনগণকে ধৈর্য ধারণ ও ত্যাগ সাধনের পরামর্শ দেন প্রেসিডেন্ট এরদোগান। তিনি বলেন, ‘সরকারি এই নির্দেশনাগুলো কঠোরভাবে মেনে চললে আল্লাহ তাআলার ইচ্ছায় আমরা খুব কম সময়ে এই সংকট কাটিয়ে উঠবো।  সব নাগরিক আমাদের কাছে সমান। তাই আমরা বলছি-ঘরে থাকো, তুরস্ক।’

যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত তুরস্কে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১০ হাজার ৮২৭ জন। এর মধ্যে ১৬৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংক্রমণ কাটিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছে ১৬২ জন।

সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি

অর্থসূচক/এসএস/এমএস

এই বিভাগের আরো সংবাদ