ছুটিতে ব্যাংকের প্রতিটি শাখায় নিরাপত্তা জোরদার
শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ছুটিতে ব্যাংকের প্রতিটি শাখায় নিরাপত্তা জোরদার

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। তবে সীমিত আকারে খোলা থাকবে সব ব্যাংক। ছুটি চলাকালীন সময়ে সব শাখার নিরাপত্তা জোরদারের নির্দেশ দিয়েছে ব্যাংকগুলো। সম্প্রতি শাখাগুলোতে চিঠি পাঠিয়ে এই নির্দেশনা দিয়েছে একাধিক ব্যাংক। পাশাপাশি সংক্রমণ রোধে নেওয়া হয়েছে জোর সতর্কতামূলক ব্যবস্থা।

মহান স্বাধীনতা দিবস, সাপ্তাহিক ছুটি এবং সীমিত আকারে ব্যাংকিং ব্যবস্থা চালু রাখা নির্দেশনার প্রেক্ষিতে দীর্ঘদিন ব্যাংক বন্ধ থাকাকালীন শাখা অফিস সমূহের নিরাপত্তা জোরদারের নির্দেশ দিয়েছে সোনালী ব্যাংক। সব শাখায় পাঠানো চিঠিতে বলা হয়-

১. ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির মধ্যে ব্যাংকের শাখা এটিএম বুথ ও অফিস সমূহের সার্বিক নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে।

২. শাখা বন্ধ করার সময় সরবরাহকৃত চেকলিষ্ট অনুযায়ী বিষয়সমূহ পরিপালন করতে হবে এবং একইভাবে ছুটি শেষে শাখা খোলার সময় চেকলিষ্ট অনুযায়ী বিষয়সমূহ লক্ষ্য করতে হবে।

৩. করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে মানুষের অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে দুর্বৃত্ত কর্তৃক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড সম্পাদিত হতে পারে। তাই করোনা ভাইরাসের সংক্রমন হতে সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহন করে শাখাসমূহের নিরাপত্তা বজায় রাখতে হবে।

৪. সীমিত আকারে ব্যাংকিং ব্যবস্থা পরিচালনার আওতাভুক্ত শাখাসমূহে লেনদেন পরিচালনার ক্ষেত্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

৫. শাখার নিকটবর্তী বসবাসকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে শাখার নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে জানতে হবে।

৬. নিরাপত্তা কর্মীদের মোবাইল নম্বর সংরক্ষণ এবং দিনে রাতে ফোন করে তাদের অবস্থান জানতে হবে। নিকটবর্তী থানা ও ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নাম্বার দৃশ্যমান স্থানে টানাতে হবে।

৭. গুরুত্বপূর্ণ শাখাগুলোর চারপাশে দিনে ও রাতে নিরাপত্তাকর্মী টহল দিচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি ভবনের পাশ থেকে কোনো সুড়ঙ্গ ঘুরে সন্দেহজনক কার্যক্রমের চেষ্টা চলছে কিনা সে সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে।

৮. শাখার চারপাশের নিরাপত্তার স্বার্থে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে।

৯. শাখার ভোল্টে ন্যূনতম নগদ অর্থ সংরক্ষণ করতে হবে। কোনো অবস্থাতেই প্রয়োজনের অতিরিক্ত নগদ টাকা সংরক্ষণ করা যাবে না।

১০. শাখার রাত্রিকালীন প্রহরা নিশ্চিত করতে হবে।

১১. অগ্নি দুর্ঘটনা মোকাবেলায় সতর্কতা এবং শাখায় স্থাপিত সিসি ক্যামেরাগুলো সচল রয়েছে কিনা সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে হবে।

১২. সরকার ঘোষিত এই ছুটি চলাকালীন সময়ে শাখা ব্যবস্থাপক কোনো অবস্থাতেই স্টেশন লীভ নিতে পারবেন না।

১৩. শাখার নিরাপত্তার স্বার্থে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের মাধ্যমে ক্রমান্বয়ে ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে সব বিষয়ে অবহিত করতে হবে।

এ বিষয়ে সোনালী ব্যাংকের মতিঝির শাকার ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ মোদাসসের হাসান জানান, শাখার নিরাপত্তায় নিকটবর্তী থানার সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। এছাড়া গ্রাহক নিরাপত্তার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে সোনালী ব্যাংক। হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ থার্মাল স্ক্যানারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। অন্যদিকে আজকের লেনদেনের পরিমাণ অন্যান্য দিনের তুলনায় ছিল খুবই কম। বাংলাদেশ ব্যাংক ঘোষিত দুই ঘন্টায় আমাদের শাখাতে মোট লেনদেন হয়েছে ৯৩ টি। টাকার অংকে যার পরিমাণ মাত্র ৭৮ লাখ।

সাধারণ ছুটির মধ্যেই সীমিত আকারে ব্যাংকিং শুরু হয়েছে। সকাল দশটা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত ব্যাংক খোলা থাকলেও নগদ লেনদেন হয়েছে ১০ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত। তবে গ্রাহক উপস্থিতি ছিল খুবই কম। গ্রাহক এবং কর্মকর্তাদের নিরাপত্তার স্বার্থে ব্যাংকের প্রতিটি শাখাতেই পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিটি প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং থার্মাল স্ক্যানার এর ব্যবস্থা করেছে ব্যাংকগুলো।

এদিকে করোনা সংক্রমণ রোধে পালাকরে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অনেক ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান। পর্যায়ক্রমে কিছু কর্মকর্তা বাসা থেকে এবং কিছু কর্মকর্তা অফিসে এসে ব্যাংকের কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারে সে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও নগদ টাকা লেনদেনে নিরুৎসাহিত করতে মোবাইলে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়েছে প্রায় প্রতিটি ব্যাংক। সহজ করা হয়েছে ইন্টারনেট ব্যাংকিং। সম্প্রতি এটিএম কার্ডের সবরকম চার্জ ফ্রি করে দিয়েছে কয়েকটি ব্যাংক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে নিরাপত্তার স্বার্থে গুরুত্ব বিবেচনায় কিছু শাখা বন্ধ রাখার পরিকল্পনা করছে ব্যাংকগুলো।

অর্থসূচক/জেডএ/এমএস

এই বিভাগের আরো সংবাদ