করোনাঃ ভারতে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু!
সোমবার, ২৫শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page
রোগী বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে

করোনাঃ ভারতে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু!

প্রতিবেশী ভারতে নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। তিন দিনের ব্যবধানে রোগী বৃদ্ধির সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি হয়ে গেছে। আজ শনিবার দেশটিতে ১৯৪ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর এর মধ্য দিয়ে রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯১৮ জন।

খবর এনডিটিভির

শুরুর দিকে দেশটিতে প্রবাসী এবং নানা কাজে বিদেশ ভ্রমণ করে আসা মানুষদের মধ্যে করোনার সংক্রমণ সীমাবদ্ধ থাকলেও  এখন স্থানীয়দের মধ্যেও বিপুল সংখ্যক রোগী পাওয়া যাচ্ছে, যারা কখনোই অথবা সম্প্রতি বিদেশে যাননি। এ থেকে বিশেষজ্ঞরা আশংকা করছেন, দেশটিতে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন (Community Transmission) শুরু হয়ে গেছে। করোনাভাইরাস মহামারীর ক্ষেত্রে এ পর্যায়টিই সবচেয়ে বিপজ্জনক।

ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম ব্যক্তিটি শনাক্ত হয় ৩০ জানুয়ারি। গত ৯ মার্চ পর্যন্ত দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল মাত্র ৪৩ জন। দৈনিক গড়ে করোনা রোগী শনাক্তের সংখ্যা ১ জনের কাছাকাছি। এর পর কয়েকদিন দেশটিতে দৈনিক গড়ে ৬ জনের মত শনাক্ত হয়েছে। কিন্ত গত ২৫ মার্চ, বুধবারের পর থেকে চিত্র রাতারাতি বদলে যেতে থাকে।

 

বুধবার দেশটিতে  ৪৩ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছিল। পরের দিন তা বেড়ে হয় ৮৮ জন। তার একদিন পর তথা ২৭ মার্চ নতুন রোগীর সন্ধান পাওয়া যায় ১৩৯ জনের। আর আজ ২৮ মার্চ, শনিবার দেশটিতে ১৯৪ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে।

আজ তথা চতুর্থ দিনে বুধবারের চেয়ে রোগী বেড়েছে ৩৫১ শতাংশ।

ভারতের বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের প্রকৃত সংখ্যা অনেক অনেক বেশি। পর্যাপ্ত পরিমাণে পরীক্ষা না হওয়ার কারণে রোগীদের বড় অংশই এখনো শনাক্তকরণের বাইরে রয়ে গেছে। খোদ ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল কাউন্সিল বলছে, ভারতে সম্ভাব্য ব্যক্তিদের মাত্র ২০ শতাংশের পরীক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে। বেশিরভাগ রোগী অচিহ্নিত থাকায় দেশটিতে বড় বিপদের ঝুঁকি আরও বাড়ছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ