ArthoSuchak
বুধবার, ৮ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ইসরাইলে করোনায় মারা যেতে পারেন ১০ হাজার মানুষ

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। ইতিমধ্যে গোটা বিশ্বকে গ্রাস করেছে করোনা। এ অদৃশ্য মারণাস্ত্রের কাছে বিশ্বের যেকোন ঘটনাই তুচ্ছ। চীনের উহান শহরে উৎপত্তির পর বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে করোনা পৌঁছে গেছে ইসরাইলে। সেখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পাওয়ায় আশঙ্কা করা হচ্ছে দেশটিতে মরণকামড় দিতে যাচ্ছে কোভিড-১৯।

যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, দেশটিতে করোনা রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ৩০ জন। এ সংখ্যা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। দেশটিতে করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধির হার দেখে ধারণা করা হচ্ছে দ্রুতই ১০ লাখ ইসরাইলি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারেন ১০ হাজার মানুষ।

দ্য জেরুজালেম পোস্ট জানিয়েছে, গত ১৮ মার্চ ১১ হাজার ইসরাইলির ওপর করোনা ভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা চালায় ইসরাইলের স্বাস্থ্য বিভাগ। সেখানে ৪৩৩ জনের ফলাফল কোভিড-১৯ পজিটিভ আসে। যা মোট নমুনার ৪ শতাংশ। এরপর গত মঙ্গলবার ২৭ হাজার ৫৪ জনের ওপর পরীক্ষা চালিয়ে সব মিলিয়ে ১ হাজার ৬৫৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়, যা ৬.১ শতাংশ।

স্যামসন আজুটা আশদুদ ইউনিভার্সিটির সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ পরিষেবার প্রধান ড্যানিয়েল গ্রুপেল ফলাফলের এই হার দেখে বলেন, এভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকলে ইসরাইলের এক-তৃতীয়াংশ বাসিন্দা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবে।

গ্রুপেলের এমন বক্তব্যের আগেই সোমবার মন্ত্রিসভার সাত ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক করেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানইয়াহু। তিনি স্বাস্থ্য বিভাগসহ সংশ্লিষ্টদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগ করোনার লাগাম টেনে না ধরতে পারলে আগামী এক মাসে ১০ লাখ ইসরাইলি কভিড-১৯ এ আক্রান্ত হতে পারে। এতে মারা যেতে পারে ১০ হাজার ইসরাইলি।’

দেশটির ম্যাগান দাউদ-আদম মেডিকেলের পরিচালক রাফায়েল স্টুরগো প্রধানমন্ত্রীর এমন হুঁশিয়ারির পর বলেন, ‘আমরা যতটুকু পরীক্ষা করতে পেরেছি তার ৪ শতাংশ রোগী পেয়েছি। হতে পারে পরীক্ষা করা হয়নি এমন অনেকে ভাইরাসটি বহন করছেন। আমি মনে করি, আক্রান্তের হার ১০ থেকে ১২ শতাংশে পৌঁছালে ইসরাইল হবে চীন-ইতালির মতো সবচেয়ে বেশি করোনায় বিধ্বস্ত দেশ।’

ইসরাইলের স্বাস্থ্য বিভাগ জানাচ্ছে, দেশটিতে সব মিলিয়ে এক লাখ পঁয়ত্রিশ হাজার কোয়ারেন্টিনে আছেন। এছাড়া একাত্তর হাজার ঊনত্রিশ জনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

নেতানিয়াহু সরকার করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রুখতে সব করোনা রোগীর মোবাইল ফোন ট্র্যাক করার কার্যক্রম চালু করেছে। এর মাধ্যমে সব করোনা রোগীর গতিবিধি অনুসন্ধান করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। করোনা পরীক্ষা করার আগে ওই ব্যক্তি কোথায় গেছেন, কার সংস্পর্শে এসেছেন সব খবরই জানা যাচ্ছে এই পদ্ধতিতে। দেশটিতে গতকাল মঙ্গলবার নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২১৪ জন। এদের মধ্যে ৩১ জনের অবস্থা গুরুতর।

অর্থসূচক/এসএস/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ