ArthoSuchak
মঙ্গলবার, ৭ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ভৈরবে প্রবাসীর মৃত্যু করোনায় নয়॥ জনপদে স্বস্তি

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মারা যাওয়া ইতালি ফেরত আব্দুল খালেক (৬০) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গতকাল সোমবার রাতে একটি বেসরকারী টেলিভিশনের টকশোতে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা: এএসএম আলমগীর। এ খবরে স্বস্তি ফিরে এসেছে এখান আতংকগ্রস্ত লোকজনের মাঝে।

এদিকে আজ মঙ্গলবার দুপুরে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডা: বুলবুল আহমেদ এ বিষয়ে আইইডিসিআর এর চিঠির বরাতে এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জানাযায়, রবিবার রাতে ভৈরব শহরের জগন্নাথপুর মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত আলমাছ মিয়ার ছেলে ইতালি ফেরত আব্দুল খালেক একটি বেসরকারী হাসপাতালে মারা যান। তিনি গত ২৮ ফেব্র“য়ারি ইতালি থেকে দেশে আসেন।

তিনি দেশে ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম রক্ষাসহ করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সাথে কোনো যোগাযোগ রক্ষা করেননি। মৃত্যুর ২/৩দিন আগে থেকে তিনি সর্দিজ্বর, শ্বাসকষ্টে ভোগে ওইদিন রাতে একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যান। সেখান থেকে চিকিৎসকরা তার স্বজনদের আইসোলেশন সেন্টারে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে ছেঁড়ে দেন। কিন্তু স্বজনরা তাকে সেখানে না নিয়ে শহরের অপর একটি বেসরকারী হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে রাতেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি লুবনা ফারজানা ও প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডা: বুলবুল আহমদের নেতৃতে একটি মেডিকেলটিম মরহুমের বাড়ি যান। পরে আব্দুল খালেকের যাওয়া দুটি হাসপাতাল ভিজিট করে লকডাউন করেন।

খবর পেয়ে সোমবার সকালে ঢাকা থেকে আইইডিসিআর এর একটি প্রতিনিধিদল এসে মরহুম আব্দুল খালেক ও তার স্ত্রী-সন্তানদের প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় ফিরে যান। পরে মরহুমের পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে এবং আশে পাশের ১০ বাড়িতে চলাচল সীমিত রাখার নির্দেশনা জারি করে প্রতিরোধ কমিটি। পুলিশ প্রহরা বসানো হয় মরহুমের বাড়ির পাশে। দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিমাদ্রী খীসার উপস্থিতিতে আইইডিসিআর এর বিধান অনুসারে জানাযা শেষে শহরের পৌর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এদিকে আব্দুল খালেকের মৃত্যু নিয়ে গতকাল দিনভর বিতর্কের ঝড় ওঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের দেশী-বিদেশী ফেসবুকারদের মাঝে। সেখানে তারা অনেকেইে আব্দুল খালেকের মৃত্যু করোনাভাইরাস রোগে নয় বলে মন্তব্য তুলে ধরেন। জনপ্রিয় এই সামাজিক মাধ্যমে ইতালি প্রবাসী ভৈরবের অনেকজন বক্তব্য তুলে ধরে বলেন, আব্দুল খালেক দীর্ঘদিন যাবত হৃদরোগে আক্রান্ত ছিলেন। তার উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাও ছিলো। তিনি নিয়মিত এইসব রোগের ওষুধ সেবন করতেন।

অন্যদিকে বেসরকারী ওই টেলিভিশনের টকশোয়ের পূর্ব পর্যন্ত ভৈরব ছিলো আতংকের শহর। এখানেও করোনাভাইরাস আক্রমণ করেছে! এমন আতংকে এখানকার অধিবাসীরা ছিলেন তটস্থ। লোকজন ফেসবুকে শংকার কথা জানিয়ে বিভিন্ন রকমের স্ট্যাটাস দেন। অনেকেই গণমাধ্যমকর্মীদের ফোন করে করণীয় কি, কী হতে পারে, জানতে চান। বর্তমানে আব্দুল খালেকের মৃত্যু করোনাভাইরাসে নয়, এই খবরে এখানকার অধিবাসীরা অনেকটা স্বস্তিবোধ করছেন বলে জানিয়েছেন অনেকেই।

এই বিভাগের আরো সংবাদ