ArthoSuchak
বুধবার, ৮ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ভয়ঙ্কর হচ্ছে ভারতের পরিস্থিতি, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩০০

করোনার ছোবলে ভয়ঙ্কর হচ্ছে ভারতের পরিস্থিতি। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৬৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যা এক দিনে সর্বোচ্চ। এর মধ্য দিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা তিনশ’র কাছাকাছি চলে এসেছে।

 

তবে আজ শনিবার পর্যন্ত ভারতের মোট রোগীর সংখ্যা সম্পর্কে বিভিন্ন সূত্র থেকে যে তথ্য পাওয়া গেছে, আর মধ্যে কিছু ভিন্নতা আছে।

আনন্দবাজার পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী আজ বিকেল পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ২৭১। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৫৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

অন্যদিকে এনডিটিভি’র প্রতিবেদন অনুসারে বিকাল পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২৮৭ জন।

কলকাতা টোয়েন্টি ফোর এক্স সেভেন পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী আক্রান্তের সংখ্যা ২৯৮ জন।

সময় যত গড়াচ্ছে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যাও ততই বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে ৬৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। যা এক দিনে সর্বোচ্চ। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২৫৮। এ দিন বিকেলের দিকে তা পৌঁছয় ২৭১-এ। দেশে যাতে সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে না বাড়ে, তার জন্য সব রাজ্য সরকারগুলোকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে বলেছে কেন্দ্র। সংক্রমণ এড়াতে মুম্বইয়ে শাট ডাউন-এর পথে হেঁটেছে রাজ্য সরকার। দিল্লি, লখনউয়ের ছবিটাও প্রায় একই রকম। (আনন্দবাজার পত্রিকা)

শনিবার সকালে পশ্চিমবঙ্গে নতুন করে একজনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে, কর্ণঅটকে নতুন তিন জন আক্রান্ত হয়েছেন, গুজরাতে আরও নতুন ৬টি ঘটনা সামনে এসেছে, সে রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩।

ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রের দশম শ্রেণীর পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গেও আপাতত বন্ধ রাখা হচ্ছে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। ওডিশার পাঁচটি জেলায় লকডাউন জারি করা হয়েছে। (কলকাতা টোয়েন্টি ফোর এক্স সেভেন)

দেশের এই অবস্থায় করোনা এড়াতে রবিবার ১৪ ঘণ্টা জনতা কার্ফু জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। যদিও পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো ভারতেও সবকিছু লকডাউন করে দেওয়া হবে কিনা সেই বিষয়ে সরকারি তরফে বিস্তারিত ভাবে কিছু জানানো হয়নি। তবে মারণ এই ভাইরাসের থাবা থেকে দেশবাসীকে বাঁচাতে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে একযোগে কাজ করে চলেছে কেন্দ্র-রাজ্যগুলো। এই অবস্থায় জনতা কার্ফু তথা এই অঘোষিত বন্ধ সফল করতে দলমত নির্বিশেষে সকলেই সমর্থন জানিয়েছেন সরকারের এমন সিদ্ধান্তকে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, দেশে যাতে সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে না বাড়ে, তার জন্য সব রাজ্য সরকারগুলোকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে বলেছে কেন্দ্র। সংক্রমণ এড়াতে মুম্বইয়ে শাট ডাউন-এর পথে হেঁটেছে রাজ্য সরকার। দিল্লি, লখনউয়ের ছবিটাও প্রায় একই রকম।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট বলছে, গোটা বিশ্বে এই মুহূর্তে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ লক্ষ ৩৫ হাজার। মৃত্যুর সংখ্যা ১০ হাজার ছুঁইছুঁই। সংক্রমণ ছড়িয়েছে ১৬৬টি দেশে। ইউরোপে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়িয়েছে। স্পেন, জার্মানিতে লাফিয়ে লাফিয়ে সংক্রমণ বাড়ছে।

সূত্র: আনন্দ বাজার পত্রিকা, কলকাতা চব্বিশএক্স সেভেন পত্রিকা ও এনডিটিভি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ