ArthoSuchak
শুক্রবার, ৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

করোনা শনাক্তে ডায়াগনোসিস চালু করলো হুয়াওয়ে ক্লাউড

করোনা ভাইরাস ‘কোভিড-১৯’ মহামারির মুখে আক্রান্তদের শনাক্তে ‘ক্লিনিক্যাল ডায়াগনোসিস স্টান্ডার্ড’ হিসেবে সিটি কোয়ান্টিফিকেশনকে অন্তর্ভুক্ত করেছে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন। সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসায় সম্প্রতি চীনের হুবেই প্রদেশে এই স্বাস্থ্য পরীক্ষাটি শুরু করা হয়েছে।

‘কোভিড-১৯’ আক্রান্তদের শনাক্ত ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে অন্যতম কার্যকর একটি পদ্ধতি হচ্ছে ‘সিটি কোয়ান্টিফিকেশন’, যেটি দ্রুততার সাথে রোগনির্ণয় এবং রোগের বর্তমান অবস্থার কার্যকর মূল্যায়নের মাধ্যমে যথাযথ সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করে থাকে। নিজস্ব কম্পিউটার ভিশন এবং মেডিকেল ইমেজ বিশ্লেষণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাল্টিপল পালমোনারি গ্রাউন্ড গ্লাস ওপাসিটিস (সিজিও-স) ও ফুসফুস একত্রিকরণের মাধ্যমে আক্রান্ত রোগীর ফুসফুসের ‘সিটি’ রিপোর্টের গুণগত মূল্যায়ন করে হুয়াওয়ে ক্লাউড। ক্লিনিক্যাল তথ্য-উপাত্ত এবং গবেষণাগারে প্রাপ্ত ফলাফলের মধ্যে সমন্বয় ঘটিয়ে এটি ‘কোভিড-১৯’ আক্রান্ত রোগীর বর্তমান অবস্থা ও রোগের পর্যায় সম্পর্কে সঠিক তথ্য সরবরাহ করে যথাযথ চিকিৎসা প্রদানে ডাক্তারদেরকে সহায়তা করে থাকে।

এছাড়া হাসপাতালে শনাক্ত রোগীর ক্ষেত্রে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সহায্যে রোগীর নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পাশাপাশি এটি স্বল্প সময়ের মধ্যে একাধিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার চর্তুমাত্রিক তথ্য-উপাত্তের গুণগত বিশ্লেষণ করতে পারে, যা রোগের অবস্থার যথাযথ মূল্যায়নের ভিত্তিতে রোগীকে সঠিক চিকিৎসা প্রদানে সহায়তা করে।

‘কোভিড-১৯’ আক্রান্ত হবার পর ফুসফুসে সৃষ্টি হওয়া অসংখ্য ক্ষত এবং সেই ক্ষতগুলোর অবস্থার দ্রুত পরিবর্তনের কারণে স্বল্প সময়ের মধ্যে একই পরীক্ষা একাধিকবার করার পাশাপাশি বার বার ফুসফুসের ইমেজ পর্যালোচনার প্রয়োজন পড়ে। এরফলে ইমেজিং ডাক্তারদের কাজের চাপ উল্লেখযোগ্যহারে বেড়েছে। কিন্তু বড় দুঃসংবাদটি হচ্ছে, ইমেজিং ডাক্তারদের মধ্যে যারা নিখুঁতভাবে ‘কোভিড-১৯’ নির্ণয় এবং রোগের পরিমাণগত বিশ্লেষণ করতে সিদ্ধহস্ত, তাদের সংখ্যা পর্যাপ্ত নয়। আর এটি যেহেতু দক্ষতার বিষয়, সুতরাং চাইলেই এক্ষেত্রে রাতারাতি উন্নতি সাধন সম্ভব না।

এই সীমাবদ্ধতা দূর করার বিষয়টি মাথায় রেখে কিছুদিন আগে ‘কোভিড-১৯’ নির্ণয় ও চিকিৎসায় পরিমাণগত মেডিকেল ইমেজ বিশ্লেষণ সেবার উন্নয়ন ও প্রচলনে হুয়াজং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ল্যানওন প্রযুক্তির সাথে কাজ শুরু করে হুয়াওয়ে ক্লাউড।

কম্পিউটার ভিশন এবং মেডিকেল চিত্র বিশ্লেষণের মতো হুয়াওয়ে ক্লাউডের শীর্ষস্থানীয় কৃত্রিমবুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির সহায়তায় বর্তমানে তারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে, দ্রুত ও সঠিকভাবে ‘সিটি কোয়ান্টিফিকেশনে’র ফলাফল চিত্রাকারে প্রকাশ করতে সক্ষম হয়েছে। ফলশ্রুতিতে ‘কোভিড-১৯’ নির্ণয়ে দক্ষ ইমেজিং ডাক্তারদের যে ঘাটতিটি ছিলো, সেটি দূর হয়েছে। এছাড়া কোয়ারেন্টাইন চাপ থেকে মুক্তির পাশাপাশি ডাক্তারদের ঘাড়ের ওপর থেকে কাজের বাড়তি চাপের বোঝাও সরে গেছে।

হুয়াওয়ে ক্লাউডের নতুন এই পরিষেবাটি হুয়াওয়ে অ্যাসেন্ড সিরিজের এআই চিপের শক্তিশালী গণনা ক্ষমতা কাজে লাগিয়ে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই যেকোনো নমুনার কোয়ান্টাইজেশন ফলাফল বের করে দিতে পারে। ‘এআই+ডাক্তারি পর্যালোচনা’- প্রচলিত পরিমাণগত ইমেজ মূল্যায়নের তুলনায় বহুগুণ দ্রুততর, যা রোগ নিণর্য় দক্ষতার ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নতি সাধনে করেছে।

‘কোভিড-১৯’ সংক্রমিত-অসংক্রমিত শত শত কেস পর্যালোচনা করে দেখা যাচ্ছে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সহায়তায় পরিমাণগত এই রোগ নিণয় পরিষেবাটি হুয়াওয়ে ক্লাউড এমনভাবে গড়ে তুলতে পেরেছে, যেটি রোগের প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরতে সক্ষম। এছাড়া এ থেকে প্রাপ্ত ফলাফলও ডাক্তারদের ম্যানুয়াল স্কেচিংয়ের সাথে বেশ সামাঞ্জস্যপূর্ণ। প্রচলিত ম্যানুয়াল পদ্ধতির সাথে তুলনা করলে বলা যায় যে, রোগ নির্ণয় দক্ষতার গুণগত মূল্যায়নের ক্ষেত্রে এটি তাৎপর্যপূর্ণ উন্নতি সূচিত করেছে।

‘কোভিড-১৯’ এর জন্য ‘এআই+সিটি’ মেডিকেল চিত্র বিশ্লেষণ সেবাটি হুয়াওয়ে ক্লাউড ইআই হেলথ-মেডিকেল ইমেজ অ্যানালাইসিস প্লাটফর্মের ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে। ‘কোভিড-১৯’ এর ওপর এআই-ভিত্তিক বৈজ্ঞানিক গবেষণা চালাতে বিভিন্ন শিল্পের সাথে কাজ করছে হুয়াওয়ে ক্লাউড। হুয়াওয়ে ক্লাউড ইতোমধ্যেই বহু বৈজ্ঞানিক গবেষণা সংস্থার কাছে আল্ট্রা লার্জ স্কেল কম্পিউটারের সহায়তায় প্রাপ্ত ওষুধ স্ক্রিনিংয়ের ফলাফল প্রকাশ করেছে। এছাড়া বিভিন্ন সংস্থা ও ইন্সটিটিউটকে শব্দের সৃষ্টির মাধ্যমে সংকেত পাঠাতে সক্ষম এমন বুদ্ধিমান মহামারি ফলোআপ সিস্টেম বিনামূল্যে সরবরাহ করতে ‘ইওয়াইস’ এর সাথেও কাজ করেছে হুয়াওয়ে ক্লাউড।

মহামারির এই সময়ে মনোনীত হাসপাতালগুলিতে কৃত্রিম বৃদ্ধিমত্তার সহায়তা বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় মেডিকেল চিত্র বিশ্লেষণ পরিষেবা প্রদান করবে হুয়াওয়ে ক্লাউড। এছাড়া ভবিষ্যতে হুয়াওয়ে ক্লাউড ফুসফুসের অন্যসব রোগ (যেমন: নিউমোনিয়া, লাঙ নোডুলস এবং লাঙ ক্যান্সার ইত্যাদি) নির্ণয়ে এই সিস্টেমটি আধুনিকীকরণ করতে থাকবে, যাতে প্রাথমিক স্ক্রিনিং এবং চিকিৎসা প্রদান করা সম্ভব হয়।
হুয়াওয়ে ক্লাউডের ‘কোভিড-১৯’ মোকাবেলা সম্পর্কে আরো জানতে ভিজিট করুন: https://www.huaweicloud.com/intl/en-us/product/eihealth.htm

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ