ArthoSuchak
বৃহস্পতিবার, ৯ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

মোদির নিজেরই নাগরিকত্বের সনদ নেই!

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নাগরিকত্বের কোনও কাগজপত্র নেই, জন্মসূত্রেই তিনি ভারতীয়। তথ্যের অধিকার আইনে (আরটিআই) মোদীর নাগরিকত্ব নিয়ে এক ব্যক্তির প্রশ্নের জবাবে এমনই জানিয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর দফতর (পিএমও)। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি শুভঙ্কর সরকার নামে এক ব্যক্তি আরটিআই-এর মাধ্যমে জানতে চান প্রধানমন্ত্রীর নাগরিকত্বের কাগজপত্র রয়েছে কি না। তারই উত্তরে পিএমও-র সচিব প্রবীণ কুমার জানান, ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনের ৩ ধারা অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী জন্মসূত্রেই ভারতীয়।

কাগজপত্রের অভাবে নাগরিকত্ব তালিকায় (এনআরসি) নাম তুলতে না পেরে অনিশ্চিত জীবনযাপন করছে ভারতের আসামের হাজার হাজার মানুষ। আত্মহত্যাও করেছেন অনেকে। বন্দিশিবিরে আটক রয়েছেন বহু মানুষ।

কাগজপত্র জোগাড় করতে না পেরে এনআরসি আতঙ্কে পশ্চিমবঙ্গে বেশ কয়েকজন আত্মহত্যা করেছেন।

এরই মধ্যে খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদির নাগরিকত্বের কাগজপত্র না থাকার তথ্য দিয়েছে পিএমও। অথচ এনআরসি করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসে বিজেপি সরকার।

এদিকে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর আগে একাধিকবার জানিয়েছে, ২০১১ ও ২০১৫ সালের জাতীয় জনগণনাপঞ্জি প্রক্রিয়ার পর দেয়া পরিচয়পত্র যাদের কাছে নেই, তারা নাগরিক নন। দেশের মানুষের বড় অংশের কাছেই সেই পরিচয়পত্র নেই।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরোধী ও সমর্থকদের সংঘর্ষে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ভারতের দিল্লিতে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৩ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন দুই শতাধিক।

পুলিশের সামনেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদসহ মুসলিমদের অসংখ্য বাড়িঘর ও দোকানপাটে বেছে বেছে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি দিয়ে মুসলমানদের প্রকাশ্যে পেটানো হয়েছে। সিএএ-এর জেরে ভারতে সবচেয়ে নাজেহাল অবস্থায় রয়েছেন সেখানকার মুসলমানরা। তাদের প্রতিটা দিনই কাটছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায়।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ