ArthoSuchak
বৃহস্পতিবার, ৯ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

নিউজিল্যান্ডকে ৯১ রানে গুটিয়ে দিয়েও সালমাদের হার

নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচ হেরে আগেই ব্যাকফুটে চলে গিয়েছিল বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। কার্যত শেষ হয়ে গিয়েছিল সেমিফাইনাল খেলার সম্ভাবনা। তবু আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার জন্য বাকি দুই ম্যাচে নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিতলেই হতো সালমা খাতুনের দলকে।

সে লক্ষ্যে দারুণ সম্ভাবনা জাগিয়েও শেষপর্যন্ত আর জেতা হলো না বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের। শক্তিশালী নিউজিল্যান্ডকে মাত্র ৯১ রানে আটকে ফেলেও পাওয়া হয়নি জয়। নিজেদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশ অলআউট হয়েছে ৭৪ রানে, হারতে হয়েছে ১৭ রানের ব্যবধানে।

মেলবোর্নের জংশন ওভালে ম্যাচটা এতটা লো স্কোরিং হবে, শুরুতে মোটেও বোঝা যায়নি। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা কিউইরা ধীরগতিতে রান তুললেও উদ্বোধনী জুটি থেকে পায় ৩৬ রান। সালমা খাতুনের স্পিনে সোফি ডেভাইন (১২) ও রাশেল প্রিয়েস্ট (২৫) পরপর ফিরে যাওয়া পরও সব ঠিক ছিল। কিন্তু রিতু মনির বলে সুজি বিটস (১৫) আউট হওয়ার পর সব এলোমেলো।

২ উইকেটে ৬৬ থেকে ৯১ রানে অলআউট নিউজিল্যান্ড। ১৮.২ ওভারে তাদের গুটিয়ে দেওয়ার পথে রিতু ছিলেন সবচেয়ে ভয়ঙ্কর। এই পেসার ৪ ওভারে মাত্র ১৮ রান দিয়ে নেন ৪ উইকেট। অধিনায়ক সালমা শুরু ও শেষটা মুড়ে দিয়ে ২.২ ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে পান ৩ উইকেট। আর রুমানা ৪ ওভারে ১৭ রান খরচায় নিয়েছেন ২ উইকেট।

৯২ রানের লক্ষ্যটা মোটেও কঠিন ছিল না বাংলাদেশের জন্য। আগের দুই ম্যাচের ব্যাটিং সেটিই জানান দিচ্ছিল। শুরুটাও মন্দ ছিল না। মুর্শিদা খাতুনের ব্যাটে ভালো কিছুরই ইঙ্গিত মিলছিল। কিন্তু ১১ রান করে তার বিদায়ের পরপরই ফিরে যান আরেক ওপেনার আয়েশা রহমান (১)। ওই জায়গা থেকে প্রতিরোধ গড়েছিলেন রিতু ও নিগার সুলতানা। কিন্তু নিগার আহত অবসরে যাওয়ার পর সব পাল্টে যায়। পরে মাঠে ফিরে নিগারের খেলা ২১ রানই সর্বোচ্চ। রিতু করেন ১০ রান। আর কোনও ব্যাটারই যেতে পারেননি দুই অঙ্কের ঘরে।

৪ ওভারে ১১ রান দিয়ে ৩ উইকেট পাওয়া হেলি জেনসেন হয়েছেন ম্যাচসেরা। তার মতো ৩ উইকেট নিয়েছেন লেইগ ক্যাসপেরেক।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ