ArthoSuchak
শুক্রবার, ১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পেঁয়াজ রফতানি শুরু করছে ভারত, দাম কমার আশা

নিষেধাজ্ঞার প্রায় পাঁচ মাস পর আবারো পেঁয়াজ রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। দেশটিতে পেঁয়াজের বাম্পার ফলনের পরিপ্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ভারতে পেঁয়াজ বাছাই করছেন এক নারী

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সভাপতিত্বে এক আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দেশটির খাদ্য ও ভোক্তা অধিকার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী রাম বিলাস পাসোয়ান এ তথ্য নিশ্চিত করে টুইটারে পোস্ট দিয়েছেন। আগামী দু-একদিনের মধ্যে এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি হতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

দেশটির খাদ্য ও ভোক্তাবিষয়ক মন্ত্রী গতকাল বুধবার গণমাধ্যমকে জানান, গত বছরের তুলনায় মার্চে ৪০ লাখ টন বেশি পেঁয়াজ উৎপাদনের আশা করা হচ্ছে। এ অবস্থায় নিষেধাজ্ঞা তুলে দেওয়া হলে কৃষকেরা ভালো দাম পাবেন। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

মন্ত্রী বলেন, দাম এখন স্থিতিশীল হয়েছে। ফসলের পরিমাণও প্রচুর। এখন পেঁয়াজের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলে তা দামকে চাপে ফেলবে।

দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বেশির ভাগ খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম প্রতি কেজি ৩০ থেকে ৪০ রুপিতে নেমে এসেছে। বাম্পার ফলনের কারণে দাম আরও কমতে পারে। এ সময় রফতানি করলে কৃষকেরা ভালো দাম পাবেন।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে বন্যায় ভারতের বিভিন্ন অংশ প্লাবিত হওয়ায় পেঁয়াজ উৎপাদনে ঘাটতি দেখা দেয়। সে সময় পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণা করে দেশটি। ভারতের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণার পর বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়ে। প্রতিবেশী দেশটি থেকে বাংলাদেশও বিপুল পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি করে থাকে। এর প্রভাবে দফায় দফায় বাড়ে থাকে পেঁয়াজের দাম।

এক পর্যায়ে বাংলাদেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ দ্রব্যটির দাম আকাশছোঁয়া হয়ে যায়। দাম ওঠে ৩০০ টাকা পর্যন্ত।

এদিকে ভারতের পেঁয়াজ রফতানির খবরে স্বস্তি ফিরে এসেছে হিলি স্থলবন্দরসহ বিভিন্ন স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারকদের মধ্যে। তারা বলছেন, ভারত থেকে কয়েকদিনের মধ্যেই পেঁয়াজ আমদানি শুরু করবেন তারা। এতে দেশের বাজারে পেঁয়াজ নিয়ে যে অস্থিতিশীলতা শুরু হয়েছে সে সমস্যা অচিরেই কেটে যাবে।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ