ArthoSuchak
বুধবার, ৮ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ভৈরবে বস্তিবাসীদের বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণে অবরুদ্ধ হওয়ার আশঙ্কায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে ওই এলাকার কয়েকশ বস্তিবাসী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের ভৈরবের নিউটাউন রোড সংলগ্ন বস্তি এলাকার রেললাইনের পাশে এ কর্মসূচী পালন করেন তারা।

এ সময় তারা বলেন, দেশ স্বাধীন হওয়ার আগে থেকে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা ভূমিহীন ও অসহায় মানুষরা এখানে বসবাস করছে। এখানে অনেকেই আছেন, যাদের জন্ম-বিয়ে এই বস্তিতেই হয়েছে। তারা নিতান্তই খেটে খাওয়া মানুষ। টাকা দিয়ে ভাড়া থাকার মতো সামর্থ্য তাদের নেই। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ তাদের যাওয়া-আসার বিষয়টি নিয়ে না ভেবেই কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণকাজ শুরু করেছেন। এটি নির্মাণ হলে তারা পুরোপুরি অবরুদ্ধ হয়ে পড়বেন। তাদের বস্তি থেকে বের হওয়া ও চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যাবে।

তারা অভিযোগ করেন, ভিনদেশের রোহিঙ্গারা যদি এই দেশে থাকার অধিকার পায়, তবে তারা কেন নিজ দেশের এই বস্তিতে স্বাধীনভাবে বসবাস করতে পারবেন না? এ সময় অনেকেইে বাসস্থান হারানোর ভয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এছাড়া তারা তাদের চলাচলের পথ খোলা রেখে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

এদিকে মানববন্ধনে উপস্থিত হয়ে বস্তির শিশুদের জন্য স্বেচ্ছাশ্রমে পরিচালিত ‘সবার স্কুল’র উদ্যোক্তা মোজাম্মেল হক মাহিন জানান, বিগত ১৪ মাস যাবৎ তাদের পরিচালিত সবার স্কুলে ৩০জন শিক্ষা গ্রহণ করে আসছে। কাঁটাতারের বেড়ার কারণে তারা আসা-যাওয়া করতে না পারলে ওইসব শিশুদের শিক্ষার পথ অবরুদ্ধ হবে। তিনিও বস্তিবাসীদের যাতায়াতের পথ রেখে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণের আহ্বান জানান।

পরে সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে তাদের দাবি তুলে ধরে একটি স্মারকলিপি জমা দেন। স্মারকলিপি গ্রহণ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা সরেজমিন পরিদর্শন শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে তাদের আশ্বাস দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান আরএকের ঠিকাদারের প্রতিনিধি মো: মিজানুর রহমান জানান, ভৈরবের রেলওয়ে স্টেশন থেকে পলাশ সিনেমা হল মোড় পর্যন্ত সাম্প্রতিক সময়ে চুরি, ছিনতাই, খুন ও মাদক চোরাচালান বেড়ে যাওয়া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এই এলাকার দুইপাশে প্রতিরক্ষা দেয়াল ও কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করছেন। যাত্রীসহ স্থানীয় মানুষের জান-মালের নিরাপত্তার জন্যই এই পদক্ষেপ। আমরা কাজ পেয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ ছাড়া কাজ বন্ধ রাখার কোন উপায় নেই।

বাংলাদেশ রেলওয়ের ভৈরব বাজারঘাটের ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী মিথুন কুমার দাস জানান, মানবিক দিকটি বিবেচনায় বিষয়টি নিয়ে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন।

অর্থসূচক/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ