ArthoSuchak
বৃহস্পতিবার, ৯ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

মেসি-হ্যামিল্টনের ইতিহাস, সঙ্গী টেন্ডুলকারও

প্রথম ফুটবলার হিসেবে লরিয়াস বর্ষসেরা ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন লিওনেল মেসি। তবে পুরস্কারটা তাকে ভাগ করে নিতে হয়েছে ফর্মুলা ওয়ানের কিংবদন্তি লুইস হ্যামিল্টনের সঙ্গে। একই রাতে জনতার ভোটে পুরস্কৃত হয়েছেন ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকারও।

জার্মানির বার্লিনে এক জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানে এবারের লরিয়াস বর্ষসেরা ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হিসেবে পুরস্কৃত হন মেসি ও হ্যামিল্টন। দুজনেই সমান ভোট পেয়ে এই স্বীকৃতি অর্জন করেছেন। পুরস্কারের ইতিহাসে এই প্রথম বর্ষসেরা ক্রীড়া ব্যক্তিত্বের পুরস্কার ভাগাভাগি করে নেওয়ার ঘটনা ঘটল।

ফুটবল থেকে এবারই প্রথম কোনও তারকা এই পুরস্কারটি জেতার নজির স্থাপন করেছেন। বলতে গেলে ভাগ্যদেবী দুজনকে সমান পাল্লাতেই মেপেছে। বিশ্বব্যাপী ভোটাভুটিতে সমসংখ্যক ভোট পেয়েছেন মেসি ও হ্যামিল্টন। এই সময়ে মেসি বার্সাকে জিতিয়েছেন লিগ শিরোপা, হ্যামিল্টন জিতেছেন ষষ্ঠ ফর্মুলা ওয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ।

এ দুজনের রেকর্ড গড়ার রাতে আরেক কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারও সঙ্গী ছিলেন। গত ২০ বছরের সেরা ক্রীড়া মুহূর্তের পুরস্কারটি জিতেছেন শচীন। ভারতের ২০১১ বিশ্বকাপ জয়ের পর টেন্ডুলকারকে ঘাড়ে তুলে ‘ল্যাপ অব অনার’ দিয়েছিল বিরাট কোহলি, হরভজন সিং ও ইউসুফ পাঠানরা। তাদের এই স্মরণীয় মুহূর্তটি লরিয়াস সেরা স্পোর্টিং মোমেন্ট হিসেবে পুরস্কার জিতেছে।

মেয়েদের ক্ষেত্রে বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের পুরস্কার জিতেছেন জিমন্যাস্ট সিমোনা বাইলাস।

এর আগে আরও পাঁচবার মনোনয়ন পেলেও ২০তম আসরে এসে সাফল্য ধরা দিল মেসির হাতে। এই পুরস্কার বিজয়ের পথে তিনি পেছনে ফেলেছেন রাফায়েল নাদাল, মার্ক মার্কুইজ, গলফার টাইগার উডসের মতো ক্রীড়া তারকাদের। গত বছর এই পুরস্কার ঘরে তুলেছিলেন টেনিস তারকা নোভাক জোকোভিচ।

২০১৯ সালের প্রায় সব সেরা পুরস্কার ঘরে তুলেছেন মেসি। গোল্ডেন শু, ষষ্ঠ ব্যালন ডি’অর, ফিফার বর্ষসেরাসহ অসংখ্য পুরস্কারের ঝুলিতে শেষ সংযোজন লরিয়াসের এই পুরস্কার। ক্রীড়া গ্রেটদের ভোটেই সেরা ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব নির্বাচিত করা হয়।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ