ভারতের নাগরিকত্ব পেলে বাংলাদেশের অর্ধেক ফাঁকা হয়ে যাবে: বিজেপির মন্ত্রী
রবিবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ভারতের নাগরিকত্ব পেলে বাংলাদেশের অর্ধেক ফাঁকা হয়ে যাবে: বিজেপির মন্ত্রী

ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়া যাবে জানলে বাংলাদেশের অর্ধেক মানুষ দেশ ছেড়ে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি।

গতকাল রোববার (০৯ ফেব্রুয়ারি) হায়দরাবাদে সন্ত রবিদাস জয়ন্তী অনুষ্ঠানে তিনি এমন মন্তব্য করেছেন। খবর এনডিটিভি অনলাইনের।

অনুষ্ঠানে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) ভারতীয় নাগরিকদের বিরুদ্ধে কীভাবে গেছে তা প্রমাণ করতে তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওকে চ্যালেঞ্জ জানান তিনি।

তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের উদ্দেশে রেড্ডি বলেন, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) কীভাবে দেশে বসবাসরত ১৩০ কোটি ভারতীয়ের বিরুদ্ধে ছিল? ভারত যদি বলে বাংলাদেশিদের নাগরিকত্ব দেবে, তাহলে বাংলাদেশের জনসংখ্যা অর্ধেক হয়ে যাবে। অর্ধেক বাংলাদেশি ভারতে চলে আসবেন। তাদের দায়িত্ব কে নেবেন? কেসিআর? নাকি রাহুল গান্ধি?

কট্টর হিন্দুত্ববাদী এই বিজেপি নেতা বলেন, তারা অনুপ্রবেশকারীদেরও নাগরিকত্ব চাচ্ছেন। ঠিক আছে, প্রয়োজনে ভারত সরকার সিএএ পর্যালোচনা করতেও প্রস্তুত।

পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হওয়া যে হিন্দু নাগরিকরা ২০১৫ সালের আগে ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন তাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্যেই সিএএ আনা হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

রেড্ডি বলেন, কয়েকটি রাজনৈতিক দল দাবি করছে যে ওইসব দেশের মুসলমানদেরও ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হোক। এই পরিপ্রেক্ষিতেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী টিআরএস এবং তার ‘বন্ধুত্ব দল’ এইআইএমআইএমএর বিরুদ্ধে ভোট ব্যাংক রাজনীতি করার অভিযোগ আনেন।

কেন্দ্রীয় এই স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী দাবি করেন, দেশের ১৩০ কোটি নাগরিকের মধ্যে একজন ব্যক্তিও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হননি।

রেড্ডির মতে, যারা ৪০ বছর ধরে ভারতে কোনও সুযোগ-সুবিধা ছাড়াই বাস করছেন, তাদের কথা ভেবেই মানবিক পদক্ষেপ নিয়েছেন কেন্দ্রের মোদি সরকার।

অনুপ্রবেশকারী এবং শরণার্থীদের একভাবে দেখা যাবে না বলে মন্তব্য করেন রেড্ডি। তিনি অভিযোগ করেন, কংগ্রেসের মতো কিছু রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে আসা অনুপ্রবেশকারীদের নাগরিকত্ব দিতে চায়।

সিএএ পার্লামেন্টে আসার আগে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর ভারতে বাংলাদেশের বিদায়ী হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী (প্রয়াত) বলেছিলেন, ‘ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যে আমাদের নিয়ে সমালোচনা হয়। কিন্তু আমি বলতে পারি, বাংলাদেশের মানুষ সমুদ্র সাঁতরে ইতালিতে যাবে, তবু ভারতে আসবে না। যেসব দেশে বাংলাদেশের মানুষ ভালো আয় করতে পারবে, সেখানে যাবে, কিন্তু ভারতের মতো কম আয়ের দেশে আসবে না।’ ওই অনুষ্ঠানে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের তথ্য উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, এ অঞ্চলে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি অন্যদের তুলনায় ভালো। এ বছর ৮ থেকে ৮ দশমিক ১ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে বাংলাদেশ। ২০২০ সাল নাগাদ ভারতকেও ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ