ArthoSuchak
শনিবার, ২৮শে মার্চ, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

হজ নিয়ে কটূক্তি: পীর আবুল বাশারকে গ্রেপ্তারে আলেম-ওলামাদের প্রতিবাদ সমাবেশ

পবিত্র হজ নিয়ে কটূক্তি করায় কিশোরগঞ্জের ভৈরবের উমানাথপুর গুলে মদিনা দরবার শরীফের পীর আবুল বাশার আলকাদরীকে গ্রেপ্তার দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন ভৈরবের আলেম-ওলামাসহ সর্বস্তরে বিক্ষোব্ধ জনতা।

লাগাতার কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আজ রোববার দুপুরে শহরের সিলেট বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এই কর্মসূচী পালন করেন তারা।

সর্বস্তরের তৌহিদী জনতার ব্যানারে ভৈরব বাজার জামে মসজিদের খতিব হাফেজ জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কমলপুর মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা আব্দুল আহাদ, হেফাজত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার মুফতি মুহসিনুল হাসান, ইমাম-উলামা পরিষদ ভৈরব এর সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ আল আমিন, সহ-সভাপতি মাওলানা মুক্তার হুসাইন রাইপুরী, সেক্রেটারি মাওলানা এনায়েতুল্লাহ ভৈরবী, মাওলালা আব্দুস সালাম, মাওলানা সাইফুল ইসলাম সাহেল, মুফতি উবাইদুল্লাহ আনোয়ার, মুফতি যোবাইর আহমাদ, মাওলানা আইউব সাবেরী, মাওলানা উসমান গণী প্রমূখ।

বক্তারা তাঁদের বক্তব্যে অবিলম্বে আবুল বাশারের গ্রেপ্তারসহ শাস্তি দাবী করেন। অন্যথায় আলেম উলামাদের নেতৃত্বে ধর্মপ্রাণ মুসলিম তৌহিদী জনতা তথাকথিত গুলে মদীনা দরবার অভিমূখে লংমার্চ করে সেই ভন্ডপীরে আস্তানা গুড়িয়ে দেবে। তখন যেকোনো পরিস্থিতির জন্য স্থানীয় প্রশাসন দায়ী থাকবেন বলে তারা হুশিয়ারি করেন।

বক্তারা প্রশাসনের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, কোন আইনে, কিভাবে এই ভন্ডপীর আবুল বাশরকে গ্রেপ্তার করবেন, সেটি আপনাদের বিষয়। আমরা শুধু জানি, ইসলামের এই শত্রুকে গ্রেপ্তার করে শাস্তির মুখোমুখি না করা পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরবো না। তবে আপনারা আমাদের ধৈর্য্যচ্যূতি ঘটাবেন না। এর ফলাফল ভালো নাও হতে পারে। আপনারা ভাববেন না, আমরা কিছুদিন আন্দোলন করে চুপ করে যাবো। আমাদের এই আন্দোলন থেমে যাবার নয়। কারণ এটি আমাদের ঈমানী দায়িত্ব পালনের আন্দোলন।

উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের উমানাথপুর গ্রামের গুল-এ মদিনা দরবার শরীফের কথিত পীর আবুল বাশার আলকাদরী গত ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জের একটি ওয়াজ মাহফিলে পবিত্র হজসহ ইসলামি অনুশাসনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মনগড়া, মিথ্যা, ভিত্তিহীন এবং ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত করে এমন সব বিষয় উল্লেখ করে বক্তব্য রাখেন এবং সেই বক্তব্য সহীহ সুন্নাহ নামের একটি ইউটিউব একাউন্ট থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়।

আবুল বাশার তাঁর বক্তব্যে বলেন, “আল্লাহ গো, ওমরা করতে যা…গা। তোর বাপ লাগেনি ওমরা? ওমরা হজের জায়গা হইছে পীরের দরবার, গুলে মদীনা। গুলে মদীনার গেইটে কদম রাখলে পূর্বের সব গুণাহ মাফ অইয়া যায়। গুলে মদীনার দরবার শরীফ হইলো আসল জায়গা। সেখানে আল্লাহ-রাসূল বর্তমান। এটিই হেরেম শরীফ। ভৈরবের গুলে মদীনা দরবার হলো-কেন্দ্র। সেখানে আমি স্বয়ং বর্তমান। আর অন্যান্য খানকায় ধ্যান করলে আমারে পাবে বিছানায় বর্তমান। মুর্শিদ নাই যার, উমরা কইরা কি লাভ? ঐ খাটাশের ঘরের খাটাশ। মুর্শিদের টিকেট ছাড়া কবরে গেলে খবর আছে।”

তার এই বক্তব্যে দেশব্যাপী নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এরই প্রেক্ষিতে আমিনুল ইসলাম মামুন নামের একজন আইনজীবি সংক্ষুব্ধ হয়ে ২ জানুয়ারী ভৈরব থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলেও পুলিশ প্রশাসন সেটি আমলে নেয়নি। পরে ১২ জানুয়ারী রোববার আবুল বাশারকে গ্রেপ্তারের দাবীতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভৈরব বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বিশাল সমাবেশ, প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল করেন কয়েক হাজার আলেম ওলামাসহ ধর্মপ্রাণ স্থানীয় জনতা।

পরে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এরপ্রেক্ষিতে ওইদিন রাতেই আইনজীবি মামুনের মামলাটি পুলিশ গ্রহণ করলেও তাকে গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ। এরইমধ্যে আবুল বাশার উচ্চ আদালত থেকে ৪ সপ্তাহের আগাম জামিন পান।

২৩ জানুয়ারি আলেম উলামা পরিষদের পক্ষ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করে আজকের কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়।

অর্থসূচক/এমএস

এই বিভাগের আরো সংবাদ