ArthoSuchak
রবিবার, ২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পঞ্চগড়ে পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৩০

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুরে র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে পাথর উত্তোলনকারী শ্রমিকদের সংঘর্ষে এক পাথর শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এতে পুলিশ ও র‌্যাবের ১১ সদস্যসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত ৪ জনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

আজ রোববার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে তেঁতুলিয়া-ঢাকা জাতীয় মহাসড়কের ভজনপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত শ্রমিক জুমার উদ্দিনের বাড়ি তেঁতুলিয়ার ভজনপুর ইউনিয়নের গনাগছ এলাকায়।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের আরএমও ডা. সিরাজউদ্দোলা পলিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাথর শ্রমিকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তার শরীরে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। তবে কি কারণে তার মৃত্যু হয়েছে, তা ময়নাতদন্ত না করে বলা যাচ্ছে না।

আহতরা পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর এলাকার পাথর শ্রমিকরা অবৈধভাবে ভূগর্ভস্থ পাথর উত্তোলনের দাবিতে রোববার সকালে মহাসড়ক অবরোধ করে। পুলিশ যান চলাচল স্বাভাবিক করতে গেলে পাথর শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এক পর্যায়ে শ্রমিকরা পুলিশের দিকে পাথর নিক্ষেপ ও চারটি গাড়ি ভাংচুর করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। এ সময় ৮ পুলিশ ও ৩ র‌্যাব সদস্যসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হন।

পরে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে জুমার উদ্দিন মারা যান। আহতদের পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিন পাথর শ্রমিককে রংপুর মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে।

পঞ্চগড়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী জানান, মূলত বোমা মেশিন চক্রের সদস্য ও সুবিধাভোগীরা শ্রমিকদের উস্কানি দিয়ে মাঠে নামিয়েছে। তারা লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের ওপর হামলা করে। ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এমনকি আহত পুলিশদের হাসপাতালে নিতেও বাধা দেয়। তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়। তারা পুলিশের বেশ কয়েকটি যানবাহনও ভাঙচুর করে। এতে পুলিশ ও র‌্যাবের ১১ জন সদস্য আহত হন। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ