দুই সিটির ভোটের তারিখ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত হয়নি
রবিবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

দুই সিটির ভোটের তারিখ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত হয়নি

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজার কারণে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি-ডিএসসিসি) ভোটগ্রহণের তারিখ পেছানো হবে কি-না, সে বিষয়ে আজও (রোববার) কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেনি নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এক্ষেত্রে উচ্চ আদালতের দিকে তাকিয়ে আছে ইসি।

আজ রোববার (১২ জানুয়ারি) নির্বাচন কমিশনের এক অনানুষ্ঠানিক সভায় এমনই মত দেন নির্বাচন কমিশনাররা। ওই সভায় নির্বাচন কমিশনের আইন শাখার কর্মকর্তাদের ডেকে রিটের সবশেষ অবস্থা জানতে নির্দেশনা দেয় কমিশন।

কমিশনের বৈঠক সূত্র জানায়, আগামী ২ মার্চ ভোটার দিবস উদযাপন বিষয়ে আলোচনা হয়। এসময় জ্যেষ্ঠ নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার সরস্বতী পূজার কারণে ভোটের তারিখ পরিবর্তনের বিষয়টি উত্থাপন করেন। অন্য নির্বাচন কমিশনরারও আলোচনায় অংশ নেন। পরে ইসির আইন শাখার কর্মকর্তাদের কাছে রিট আবেদনের সবশেষ অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত থেকে এখনও কোনো রায় পাওয়া যায়নি। পরে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়।

বৈঠক শেষে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন পেছানোর ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

কবিতা খানম বলেন, ৩০ জানুয়ারি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল। নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের বিষয়টি আদালতেও গেছে। কিন্তু আদালত নির্বাচন পেছানোর কথা বলেননি। আমরাও আমাদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসছি না। নির্বাচন ৩০ জানুয়ারিই থাকছে।

সরস্বতী পূজার কারণে নির্বাচন পেছানোর জন্য দু’দফা আবেদন করেছে বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ। নির্বাচন পেছানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী ও নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন জানিয়েছে শ্রী শ্রী জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ বাংলাদেশ। এছাড়া একই কারণে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদনও করেছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ।

অন্যদিকে গত ৯ জানুয়ারি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে ভোট পেছানোর একটি আবেদনও করেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে ১০ জানুয়ারি ভোট পেছাতে ইসি সচিব মো. আলমগীরকে একটি সুপারিশও ইসিতে পাঠিয়েছে রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ