সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যায় সরকার উদ্বিগ্ন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
রবিবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যায় সরকার উদ্বিগ্ন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশের নীতি হলো একজনও যেন সীমান্তে মারা না যায়। ভারত এ বিষয়ে একমত হয়েছে। তবে তারপরেও মৃত্যু হচ্ছে। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে হত্যা হওয়ায় বাংলাদেশ উদ্বিগ্ন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আবুধাবি সফর উপলক্ষে আজ রোববার (১২ জানুয়ারি) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই সীমান্তে যেন কেউ না মারা যায়। তারাও (ভারত) বলেছে একজনও যাতে না মারা যায়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটি হচ্ছে। এজন্য আমরা উদ্বিগ্ন এবং আমরা বিষয়টি ভারতকে জানাবো। আমরা চাই তারা যেন সীমান্তে হত্যা নিয়ে তাদের যে অবস্থান সেটির বাস্তবায়ন করে। যাতে করে একজনও মারা না যায়।

‘ভারত-বাংলাদশ সীমান্তে হত্যাকাণ্ড শূন্যতে নামিয়ে আনতে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে বৈঠক হয়েছে। তারা এ হত্যাকাণ্ড বন্ধে পদক্ষেপও নিয়েছে। তবুও হত্যাকাণ্ডের মতো ঘটনা ঘটেছে।’

ভারতে রাইসিনা ডায়লগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর অংশ না নেওয়ার প্রসঙ্গে এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আমাদের প্রতিমন্ত্রী সেখানে যেতে পারবেন না, এটা আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এটা নিয়ে ইন্ডিয়ার গণমাধ্যম একটু বেশি বেশি করছে। আমরা তো কোনো কিছুই বলছি না। ভরতের সাথে আমাদের সম্পর্ক ভালোই রয়েছে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ভারত সফর বাতিল প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, রাইসিনা ডায়লগে অংশ নেয়ার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে দ্বিপাক্ষিক সফরে সংযুক্ত আরব আমিরাত যাওয়াটা পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর জন্য বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

ভারতের মিডিয়াতে ‘বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক শীতল’ এ সম্পর্কিত খবরের বিষয়ে তিনি বলেন, ভারতীয়রা একটু বেশি করে। মিডিয়া বলছে শীতল, কিন্তু আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত উষ্ণ। কিন্তু সমস্যা বের করছে মিডিয়া। যেমন গতকাল (শনিবার) তারা একটি ননইস্যু বের করেছে। ভারতের থিংক ট্যাংক একটি ইভেন্ট করছে এবং আমাকে দাওয়াত দিয়েছিল। আমি আগেভাগেই বলেছি যেতে পারবো না। তখন তারা আমাদের প্রতিমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানায়। তিনিও যাবেন বলে তাদেরকে জানাননি। যেহেতু এনভয় কনফারেন্স করছি তাই সেখানে আমাদের প্রতিমন্ত্রীর সেখানে থাকা উচিত। এখানে (ভারতে) দ্বিপক্ষীয় কোনও বিষয় নেই। প্রতিমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন যে তিনি যেতে পারবেন না। এরপরেও পত্রিকায় যা লেখা হয়েছে তা ঠিক না। তারা বিভিন্নভাবে অস্বস্তিকর পরিস্থিতি তৈরি করার চেষ্টা করে।

কাশ্মিরের ছাত্রদের বাংলাদেশ ভিসা দিচ্ছে না- এ বিষয়ে ভারতের মিডিয়াতে প্রকাশিত খবরের বিষয়ে তিনি বলেন, এটি একদম মিথ্যা খবর। যে খবর প্রকাশ হয়েছে সেটি একদম মিথ্যা ও বানোয়াট।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন ও মন্ত্রণালয়ের মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিটের প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) খুরশেদ আলম।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ