ফের চলন্ত বাসে ধর্ষণের পর হত্যা, চালক আটক
রবিবার, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ফের চলন্ত বাসে ধর্ষণের পর হত্যা, চালক আটক

ঢাকার ধামরাইয়ে এক নারী শ্রমিককে বাসের মধ্যে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বাস চালক সোহেলকে আটক ও বাসটি জব্দ করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) রাতে বাসচালককে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা।

এর আগে রাতে ধামরাইয়ের হিজলী খোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশে একটি ঝোপের মধ্য থেকে ওই তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত মমতা আক্তার (১৯) উপজেলার কুশুরা ইউনিয়নের কাঠালিয়া গ্রামের শাহজাহান খাঁর মেয়ে ও ডাউটিয়া প্রতীক সিরামিক কারখানার শ্রমিক ছিলেন।

আটক বাসচালক ফিরোজ ওরফে সোহেল (৩০) রাজবাড়ী জেলার পাংশা থানার খালকোলা গ্রামের আমানত খানের ছেলে। সে প্রতীক সিরামিক কারখানার শ্রমিকদের ভাড়া করা বাস চালাতেন। ঘটনার সময় বাসে কোনো সহযোগী ছিল না।

নিহতের স্বজনরা জানান, ধামরাই উপজেলার কুশুরা ইউনিয়নের কাঠালিয়া গ্রামের শাজাহান মিন্টুর মেয়ে মমতাজ বেগম (১৮) ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে ধামরাইয়ের ডাউটিয়া এলাকায় প্রতীক সিরামিকস কারখানায় প্রায় ৬ মাস ধরে শ্রমিকের কাজ করছিলেন। প্রতিদিনের মতো কাজে যোগদানের উদ্দেশে শুক্রবার ভোরে তার মা তাকে গাড়িতে তুলে দেন। দিন শেষে মেয়ে আর বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে খোঁজখবর নেন। না পেয়ে তার বাবা শুক্রবার রাতে ধামরাই থানায় একটি জিডি করেন।

তারা আরও জানান, ওই রাতেই পুলিশ অনুসন্ধান চালিয়ে ধামরাই উপজেলার কাওয়ালীপাড়া-বালিয়া আঞ্চলিক সড়কের পাশে হিজলীখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিপরীতে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির জঙ্গল থেকে মমতাজের মরদেহ উদ্ধার করে।

ওই রাতেই বাসসহ চালক সোহেলকে (২৫) উপজেলার জেঠাইল এলাকায় তার শ্বশুরবাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ধামরাইয়ের কাওয়ালীপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (পুলিশ পরিদর্শক) রাসেল মোল্লা জানান, আটক বাসচালকের মুখে, হাতে ও গলায় নখের আচড়ের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ