উদ্বোধন হলেও প্রস্তুত নয় বাণিজ্য মেলা
সোমবার, ১০ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

উদ্বোধন হলেও প্রস্তুত নয় বাণিজ্য মেলা

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৫তম আসরের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিন। বরাবরের মতো আজ ১ জানুয়ারি সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিনি এর উদ্বোধন করেন। এদিকে বাণিজ্য মেলা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হয়ে গেলেও এখনও প্রস্তুত হয়নি অধিকাংশ স্টল ও প্যাভিলিয়ন।

প্রধানমন্ত্রীর বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন করার পর দুপুরে মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায় প্রস্তুত না হওয়ার চিত্র। মেলা প্রঙ্গণে দেখা যায়, মেলা আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো তাদের নিজেদের কাজই সম্পন্ন করতে পারেনি। অন্যদিকে মেলায় অংশ নেয়া অধিকাংশ বেসরকারি স্টল ও প্যাভিলিয়নও তাদের প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে পারেনি।

এদিকে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের কর্মকর্তাদের সবার জায়গা প্রস্তুত নয়। আজ বুধবার দুপুরেও চলছিল তাদের বসার জায়গা প্রস্তুত করার কাজ। কোনো কর্মকর্তার উপস্থিতি দেখা মেলেনি। ফলে মেলায় কেউ প্রতারিত হলে তাৎক্ষণিকভাবে তারা ভোক্তা অধিকারের সেবা থেকে বঞ্চিত হবেন।

প্রস্তুত নয় ডিজিটাল তথ্য কেন্দ্রও। যেখান থেকে ডিজিটাল ম্যাপ, ওয়ে ফাইন্ডিং (চলাচলের রাস্তা) ও ডিরেক্টরির (নির্দেশনা) সেবা দেয়া হয়। এই তথ্য কেন্দ্রে কোনো লোক কিংবা প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিরও উপস্থিতি দেখা গেল না।

বেশিরভাগ জায়গাতেই কাজ চলমান। আবার কিছু কিছু স্টল/প্যাভিলিয়ন মালামাল গোছাতে ব্যস্ত সময় পার করছিল।

অন্য অনেক প্যাভিলিয়নের মতো এখনও প্রস্তুত নয় ফ্রুটিকাও। সেখানে কর্মরতরা জানান, ভেতরের কাজ শেষ হয়ে গেছে। বাইরের কাজ মাত্র ২৫ শতাংশের মতো হয়েছে। বাকি ৭৫ শতাংশের মতো কাজ শেষ করতে আরও ৪ থেকে ৫ দিন লেগে যাবে।

তবে দুপুরের দিকে ঘুরে আরও দেখা যায়, মেলার ভিআইপি ফটক প্রস্তুত। অন্যদিকে স্মৃতিসৌধ ও মেট্রোরেলের আদলে করা মূল ফটকও সম্পন্ন হয়েছে।

এ বিষয়ে কথা বলতে মেলার সদস্য সচিব ও রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) উপ-পরিচালক (ফাইন্যান্স) মো. আবদুর রউফকে ফোন দেয়া হয় আজ বুধবার ও গতকাল মঙ্গলবার। তবে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এর আগে তিনি জানিয়েছিলেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সব কাজ শেষ করতে পারবেন।

মেলা সূত্র জানায়, আজ থেকে শুরু হওয়া বাণিজ্য মেলা আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে। টিকিটের দাম বাড়িয়ে এ বছর প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ৪০ টাকা এবং অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এবার মেলা মাঠের আয়তন মেলা প্রাঙ্গন সংশ্লিষ্ট গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গাসহ প্রায় ৩২ একর।

এবারের মেলার মোট স্টল ও প্যাভিলিয়নের সংখ্যা মোট ৪৮৩টি। এর মধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ১১২টি, মিনি প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ১২৮টি এবং বিভিন্ন ক্যাটাগরির স্টলের সংখ্যা ২৪৩টি। এর মধ্যে বিদেশি প্যাভিলিয়ন ২৭টি, বিদেশি মিনি প্যাভিলিয়ন ১১টি এবং বিদেশি প্রিমিয়ার স্টলের সংখ্যা ১৭টি।

এবারের মেলায় ২১টি দেশ অংশ নিয়েছে। তার মধ্যে বাংলাদেশ ছাড়া থাইল্যান্ড, ইরান, তুরস্ক, নেপাল, চিন, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, পাকিস্তান, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, ভুটাল, ব্রুনাই, দুবাই, ইটালি ও তাইওয়ান রয়েছে।

অর্থসূচক/এমআরএম/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ