ক্যাব ও এনআরসি ইস্যুতে 'গণভোট'র চ্যালেঞ্জ মমতার
রবিবার, ৩১শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ক্যাব ও এনআরসি ইস্যুতে ‘গণভোট’র চ্যালেঞ্জ মমতার

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও জাতীয় নাগরিকপঞ্জি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্যে জাতিসঙ্ঘের তত্ত্বাবধানে গণভোট নেওয়ার চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন।

ছবি সংগৃহীত

আজ বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কোলকাতায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও জাতীয় নাগরিকপঞ্জি এনআরসি বিরোধী এক সমাবেশে বক্তব্য রাখার সময় কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মমতা বলেন, ‘যদি ধাক্কা সামলাতে হয় আর বুকের যদি পাটা থাকে চলে আসুন, ভোটে চলে আসুন, ‘গণভোট’। নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি’র ওপরে সারা ভারতে একটা ‘গণভোট’ হয়ে যাক। এটা আপনি করবেন না। ইউনাইটেড নেশনস করবে। একটা নিরপেক্ষ সংস্থা। তাঁদের একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে দিন। জাতিসঙ্ঘ, মানবাধিকার কমিশন, গুরুত্বপূর্ণ যারা এক্সপার্ট তাঁদের নিয়ে একটা কমিটি হোক তাতে তৃণমূলের থাকার দরকার নেই, বিজেপিরও থাকার দরকার নেই, অন্য দলেরও থাকার দরকার নেই। হিন্দু-মুসলিম-শিখ-খ্রিস্টান কারও থাকার দরকার নেই। আমরা চাই তাঁরা একটা ‘গণভোট’ সংগঠিত করুক ভারতে। আমরা দেখতে চাই কটা লোক ওই আইন মানছে আর কটা লোক মানছে না। যদি মানুষ না মানে বলুন ইস্তফা দিতে বাধ্য হবেন।’

বিজেপি নেতাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘আগুন নিয়ে খেলবার চেষ্টা করবেন না! সবকিছু হারিয়ে গেলে ফেরত পাওয়া যায় কিন্তু অস্তিত্ব হারিয়ে গেলে আর ফেরত পাওয়া যায় না।’ আমাদের দুর্ভাগ্য যে বাবা-মায়ের জন্ম তারিখ কবে তার কৈফিয়ত দিতে হবে! আমরা এখানে জন্মেছি এটা বড় পরিচয় নয়? যারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পরেও এসেছেন সেটা তো ভারত সরকারের চুক্তি অনুযায়ী এসেছেন ১৯৭১ সালের মার্চ পর্যন্ত। তাঁরা অনেক বেশি ভারতীয় নাগরিক। মতুয়ারাও যারা এসেছেন তাঁরা বাংলাদেশের মুক্তি যুদ্ধের আগে ও পরে এসেছেন। তাঁরা সকলেই নাগরিক।’

এ সময় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বাতিল করা না পর্যন্ত তাঁদের আন্দোলন চলবে বলে জানিয়ে দেন এবং সব রাজ্যকে এর বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান তিনি।

অর্থসূচক/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ