রিং শাইনের লেনদেন শুরুর তারিখ নির্ধারণ
শনিবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

রিং শাইনের লেনদেন শুরুর তারিখ নির্ধারণ

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) এর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে উভয় পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়া  রিং সাইন টেক্সটাইল লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন শুরুর তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। ডিএসই সূত্রে জানা যায়।

সূত্র মতে, আগামীকাল বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ঢাকা ও চট্টগ্রাম উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে একসাথে কোম্পানিটি এন ক্যাটাগরিতে লেনদেন শুরু করবে।ডিএসইতে কোম্পানিটির ট্রেডিং কোড হবে “RINGSHINE”। আর কোম্পানি কোড হবে ১৭৪৮৩।

এরআগে, বিদ্যমান দুটি আইনের সাংঘর্ষিক অবস্থার কারণে রিং শাইনের শেয়ার লেনদেন নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়। তবে এই জটিলতা সৃষ্টি করেছে খোদ কোম্পানিটি। রিং শাইন টেক্সটাইল গত ২০ নভেম্বর সর্বশেষ হিসাববছরের জন্য ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

Ring-Shine-Logo.jpg

বিদ্যমান আইন অনুসারে, লভ্যাংশ সংক্রান্ত ঘোষণার পরবর্তী লেনদেন দিবসে সার্কিট ব্রেকার বা শেয়ারের মূল্য পরিবর্তনের সীমা থাকে না। এ হিসেবে রিং শাইনের শেয়ার লেনদেন শুরুর প্রথম দিনে সার্কিট ব্রেকার থাকার কথা নয়। কিন্তু সম্প্রতি জারি করা বিএসইসির একটি নির্দেশনা অনুসারে, আইপিও পরবর্তী প্রথম লেনদেনের দিন থেকেই সার্কিট ব্রেকার কার্যকর হবে। আইন এই জটিলতার প্রেক্ষিতে ডিএসই রিং শাইনের শেয়ার লেনদেনের জটিলতা তুলে ধরে বিএসইসির কাছে গাইডলাইন চাইলে তারা একটি গাইডলাইন দিয়েছে।

জানা গেছে, বিএসইসি ডিএসইকে জানিয়েছে সার্কিটব্রেকার সংক্রান্ত ইস্যুতে তাদের সর্বশেষ নির্দেশনাটিই বাস্তবায়ন করতে হবে। অর্থাৎ লেনদেন শুরুর প্রথম দিন থেকেই রিং শাইনের শেয়ারে সার্কিট ব্রেকার থাকবে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ অক্টোবর, বুধবার কোম্পানিটির শেয়ার বিনিয়োগকারীদের বিও হিসাবে জমা হয়েছে। এর আগে গত ১ অক্টোবর রিং সাইনের আইপিও লটারির ড্র  অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) প্রাতিষ্ঠানিক বা যোগ্য বিনিয়োগকারী ও সাধারণ বিনিয়োগকারীসহ মোট ৬৬০ শতাংশ আবেদন করেছিল।

এরমধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক বা যোগ্য বিনিয়োগকারীরা প্রায় ৫০০ কোটি টাকার আবেদন করেছেন। এক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিকদের জন্য বরাদ্দের থেকে ৫৫৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ বেশি আবেদন করা হয়েছে। এর আগে গত ২৫ আগস্ট থেকে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আইপিওতে আবেদন সংগ্রহ করা হয়। কোম্পানিটির শেয়ার কেনার জন্য আইপিওতে ৬৪৫টি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান থেকে আবেদন করা হয়েছে। ওইসব বিনিয়োগকারীরা বরাদ্দকৃত ৭৫ কোটি টাকার বিপরীতে ৪৯৪ কোটি ৭৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার আবেদন করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) থেকে কনসেন্ট লেটার পায় কোম্পানিটি। তার পরেই কোম্পানিটি তাদের আইপিও আবেদন শুরুর তারিখ আগামী ২৫ আগস্ট নির্ধারণ করেন।

এরআগে বিএসইসির ৬৭৯তম কমিশন সভায় কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেয়া হয়। রিং সাইন টেক্সটাইল শেয়ারবাজারে ১৫ কোটি সাধারণ শেয়ার ছেড়ে ১৫০ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয়, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৮ সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী কোম্পানিটির ভারিত গড় হারে শেয়ার প্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৮৬ পয়সা এবং পুনমূল্যায়ন ব্যতিত শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৩ টাকা ১৭ পয়সা। এবং আইপিও লাটারির সাম্ভব্য তারিখ আগামী ১লা অক্টোবর নির্ধারণ করা হয়েছে।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড এবং সিএপিএম এডভাইজরি লিমিটেড।

এই বিভাগের আরো সংবাদ