চালের বাজার নিয়ন্ত্রণের দরকার নেই: কৃষিমন্ত্রী
শনিবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

চালের বাজার নিয়ন্ত্রণের দরকার নেই: কৃষিমন্ত্রী

চালের বাজার নিয়ন্ত্রণ করার কোনো দরকার নেই। বাংলাদেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ চাল রয়েছে। চাল নিয়ে কারো উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই। চালের বাজার সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

আজ শুক্রবার রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ের সেচ ভবনে কৃষকদের বাজারজাত করা সবজির হাটের ‘কৃষকের বাজার’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন কৃষিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, চালের দাম মোটেই বাড়ছে না, চিকন চাল যেটা সরু চাল সেটার দাম কিছুটা বেড়েছে, তবে যেটা বেড়েছে সেটা গতবারের থেকে অনেক কম বেড়েছে। যেটা কম ছিল সেটা বেড়েছ।

তিনি সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা এত কম দামে সরু চাল খেতে চাচ্ছেন কেন। চাষিকে আমাদের বাঁচাতে হবে না, চাষি কিভাবে বাঁচবে। সাড়ে চারশো থেকে সাড়ে পাঁচশো টাকা ধান বিক্রি হয়, একমন চাল তৈরী করতে লাগে সাড়ে ছয়শো টাকা।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, চালের বাজার নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই। চিন্তা হতে পারে যদি কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়। এখন আপনারা আমাদের সহযোগিতা করেন, কৃষক যাতে তাদের পণ্যের ন্যায্যমূল্য পায়। খামারে যারা কৃষিকাজ করে তারা যেন সঠিক মূল্য পায়, এটিও আমাদের দেখতে হবে।

তিনি উল্লেখ করেন, আমাদের ওএমএস ট্রাক থেকে চাল বিক্রি করা যায় না। তাই কোন ওএমএস ডিলার চাল তুলছে না। মোটা চালের দাম এক টাকাও বাড়ে নাই।বরং মোটা চালের চাহিদা নাই, আমারা সেটা নিয়ে টেনশনে আছি।

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, কেন শুধু চিকন চাল খেতে হবে। মোটা চালে তো কোন সমস্যা নাই। আমার বিজিএফ এর মাধ্যমে দরিদ্রদের যে ফ্রি চাল দেই সেটাও তারা খায়না। দেখা যায় তারা সেটা বিক্রি করে দিচ্ছে।

এদিকে বাজারে পেঁয়াজের ঊর্ধ্বমূল্যের পরিপ্রেক্ষিতে কৃষক পর্যায়ে ছোট ছোট পেঁয়াজ উঠিয়ে ফেলায় সরকার উদ্বিগ্ন বলে জানান কৃষিমন্ত্রী। তিনি বলেন, পেঁয়াজ এখনো বড় হয়নি। আরও অনেক বড় হওয়া দরকার। আমরা এটা নিয়ে শঙ্কিত আছি। সব ছোট ছোট পেঁয়াজ বিক্রি করে দিচ্ছে। জানুয়ারি মাসে কী উপায় হবে? পেঁয়াজের উৎপাদন তো কমে যাবে।

তিনি বলেন, এবছর পেঁয়াজের দাম বেশি থাকায় আগামী বছর দেশে অনেক বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হতে পারে বলে ধারণা করছেন তিনি। এতে করে পরবর্তী বছর কৃষক পেঁয়াজের ন্যায্যমূল্য পাবে কিনা তা নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেন মন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, যখন দেশে পেঁয়াজ উত্তোলন করা হয় তখন বিদেশি পেঁয়াজের আমদানির কারণে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারে না আমাদের কৃষকরা। তাই আমরা পেঁয়াজের মৌসুমে তা আমদানি বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে।

অর্থসূচক/এমআরএম

এই বিভাগের আরো সংবাদ