গোলাপি বলে 'ধূসর' বাংলাদেশ
সোমবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

গোলাপি বলে ‘ধূসর’ বাংলাদেশ

কলকাতায় প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্টে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে কোনও লড়াই দেখা গেলো না। গোলাপি বলের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ করলো তারা। ভারতের পেস বোলিংয়ে ৩০.৩ ওভারে মাত্র ১০৬ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ।

ইডেন গার্ডেনসে ঐতিহাসিক দিবা-রাত্রির টেস্টে গোলাপি রঙয়ে সেজেছে কলকাতা। স্টেডিয়ামেও গোলাপি রঙয়ের ছড়াছড়ি। ভিডিও রিপ্লে বোর্ড, বিজ্ঞাপন থেকে টিভি পর্দার স্কোর বোর্ডও গোলাপি। ইডেনের সবুজ ঘাসে সেই রঙ যেন আরও ফুঁটে উঠেছে। এই গোলাপি এবং সবুজের ভিড়ে ভারতীয় পেসারদের গোলাপি বলের বিষে নীল হয়ে গেছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার (২২ নভেম্বর) ইডেন গার্ডেনসে বাংলাদেশ সময় দুপুর দেড়টায় শুরু হয় সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট। ইনিংসের সপ্তম ওভারে ইশান্ত শর্মার বলে এলবির ফাঁদে পড়েন ইমরুল। প্রথম বলে রিভিউ নিয়ে বেঁচে গেলেও তৃতীয় বলে রিভিউ নিয়ে বাঁচতে পারেননি। দলীয় ১৫ রানের মাথায় বিদায় নেন ইমরুল। তার আগে ১৫ বলে করেন মাত্র ৪ রান।

এরপর তিন নম্বরে নামা মুমিনুল হককে (৭ বলে ০) বিদায় করেন উমেস যাদব। দলীয় ১৭ রানের মাথায় স্লিপে দাঁড়ানো রোহিত শর্মা দুর্দান্ত এক ক্যাচ নেন। এক বল পরে মোহাম্মদ মিঠুনকে বোল্ড করেন উমেস যাদব। দলীয় ২৬ রানের মাথায় বিদায় নেন মুশফিকুর রহিম। মোহাম্মদ শামির বলে বোল্ড হওয়ার আগে কোনো রান পাননি মুশফিক। দলীয় ২৬ রানের মাথায় বাংলাদেশ তাদের চতুর্থ উইকেট হারায়। দলীয় ৩৮ রানের মাথায় বিদায় নেন ওপেনার সাদমান ইসলাম (২৯)। উমেস যাদবের তৃতীয় শিকারে ফেরেন ৫২ বলে ৫ বাউন্ডারিতে ইনিংস সাজানো সাদমান।

পাঁচ উইকেট হারানো বিপাকে পড়া দলকে ভরসা দিচ্ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং লিটন দাস। এই জুটিতে এসেছে ২২ রান। দলীয় ৬০ আর ব্যক্তিগত ৬ রানে ইশান্ত শর্মার বলে উইকেটের পেছনে ধরা পড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। দ্বিতীয় সেশনে ব্যাট হাতে নামেননি লিটন দাস। ইশান্ত শর্মার তৃতীয় শিকারে ফেরেন ৭ রান করে বোল্ড হওয়া এবাদত হোসেন। বাংলাদেশ দলীয় ৮২ রানের মাথায় সপ্তম উইকেট হারায়।

মাথায় বলের আঘাত লাগায় আম্পায়ারের অনুমতি নিয়ে ক্রিজ ছাড়েন লিটন দাস। টেস্টের নতুন নিয়ম অনুযায়ী লিটন ব্যাট করতে না পারলে কনকাশন রিপ্লেসমেন্ট (বদলি খেলোয়াড়) হিসেবে অন্য কেউ নামতে পারবেন। রিটায়ার্ড হার্ট হওয়ার আগে তিনি করেন ২৪ রান। কনকাশন রিপ্লেসমেন্ট হিসেবে তার জায়গায় আসেন মেহেদি হাসান মিরাজ। তবে, বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি মিরাজ। দলীয় ৯৮ রানের মাথায় ইশান্ত শর্মার চতুর্থ শিকারে ফেরেন ১৩ বলে ৮ রান করা মিরাজ।

নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে বিদায় নেন নাঈম হাসান। ইশান্ত শর্মার পঞ্চম শিকারে ফেরার আগে তিনি ২৮ বলে করেন ১৯ রান। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিদায় নেন আবু জায়েদ রাহি। মোহাম্মদ শামির বলে ফেরার আগে কোনো রান পাননি তিনি। ইশান্ত শর্মা ৫টি, উমেস যাদব তিনটি আর মোহাম্মদ শামি দুটি করে উইকেট তুলে নেন।

বাংলাদেশের টেস্ট অভিষেকটা হয়েছিল ঘরের মাঠে ভারতের বিপক্ষে। এবার আরেকটি অভিষেক হলো বাংলাদেশের। প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্টে, গোলাপি বলে। এবারও প্রতিপক্ষ ভারত। তবে, ভেন্যু এবার কলকাতার ইডেন গার্ডেনস। ভারতও প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্টে নেমেছে।

দুই পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। মেহেদি হাসান মিরাজের বদলে নাঈম হাসান। আর স্পিনার তাইজুল ইসলামের বদলে এসেছেন পেসার আল আমিন হোসেন। ভারতের একাদশে কোনো পরিবর্তন নেই। ইন্দোর টেস্টের একাদশটিই রেখে দিয়েছে তারা।

বাংলাদেশের একাদশ:
সাদমান ইসলাম, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ, নাঈম হাসান, আবু জায়েদ, আল আমিন হোসেন, এবাদত হোসেন।

ভারতের একাদশ:
রোহিত শর্মা, মায়াঙ্ক আগারওয়াল, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), চেতশ্বর পূজারা, আজিঙ্কা রাহানে, রবীন্দ্র জাদেজা, রিদ্ধিমান শাহা (উইকেটরক্ষক), রবীচন্দ্রন অশ্বিন, ইশান্ত শর্মা, মোহাম্মদ শামি, উমেস যাদব।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ