যৌন হয়রানির অভিযোগে টেনিস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা
মঙ্গলবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

যৌন হয়রানির অভিযোগে টেনিস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছে এ দেশে খেলতে আসা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এক টেনিস খেলোয়াড়। এ ঘটনায় গতকাল বুধবার রাতে গুলশান থানায় গোলাম মোর্শেদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন ওই খেলোয়াড়ের স্বজনেরা।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গুলশান থানার ডিউটি অফিসার এসআই সিনথিয়া। এ প্রসঙ্গে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, গতকাল মামলা হয়েছে। একমাত্র আসামি বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদ। নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১০ ধারায় ‘শ্লীলতাহানি’র অভিযোগে মামলাটি করা হয়েছে।

মামলাটি করেছেন যৌন হয়রানির শিকার ১৬ বছরের ওই টেনিস খেলোয়াড়ের চাচা হীরা লাল। ভুক্তভোগী ওই কিশোরী আমেরিকা প্রবাসী এক টেনিস খেলোয়াড়ের মেয়ে।

গতকাল (বুধবার) হীরা লাল গুলশান থানায় করা এজাহারে অভিযোগ করেন, ‘আইটিএফ জুনিয়র টেনিসে অংশ নিতে গত ২ নভেম্বর ঢাকায় এসেছিল আমার ভাতিজি। বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদের মাধ্যমে ঢাকা ক্লাবের গেস্ট হাউজে উঠেছিল সে। গত ৪ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিটের দিকে গোলাম মোর্শেদ আমার ভাতিজির কক্ষের সামনে এসে তাকে ডিনারের প্রস্তাব দেন। আমার অপ্রাপ্ত বয়স্ক ভাতিজি প্রস্তাবে রাজি হলে গোলাম মোর্শেদ তার গাড়িতে গুলশানের বাসায় নিয়ে মদ ও সিগারেটের অফার করেন। গাড়িতে বসে গোলাম মোর্শেদ আমার ভাতিজির শরীরের বাম পাশের উরুতে হাত দিয়ে তাকে শ্লীলতাহানি করেন এবং অশ্লীল কথাবার্তা বলেন।’

‘পরে আমার ভাতিজিকে নিয়ে মোর্শেদ একটি কফিশপে যান। কফি খাওয়ার পর আমার ভাতিজি তাকে ঢাকা ক্লাবে পৌঁছে দেয়ার অনুরোধ করলে কৌশলে গোলাম মোর্শেদ তাকে আবার বাসায় নিয়ে কুপ্রস্তাব দেন। আমার ভাতিজি প্রতিবাদ ও চিল্লাচিল্লি করলে গোলাম মোর্শেদ একটি গাড়ি ভাড়া করে তাকে পৌঁছে দেন। আমার ভাতিজি হতাশাগ্রস্ত হয়ে কাউকে না জানিয়ে ১৪ নভেম্বর আমেরিকা চলে যায়। আমার ভাই ও ভাতিজির সঙ্গে যোগাযোগ করে বিস্তারিত জানার পর এজাহার করি। সবকিছু জানতে সময় লাগায় এজাহার করতেও বিলম্ব হয়। এ বিষয়ে বিবাদীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে মর্জি হন।’

টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদের এমন আচরণে স্তম্ভিত ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে ওই কিশোরী খেলোয়াড়। ঢাকায় আত্মীয়স্বজনদের না জানিয়ে ১৪ নভেম্বর ফিরে যায় সে। কিন্তু সেখানে গিয়েও প্রথমে তার বাবাকে সরাসরি ঘটনাটি বলতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত এক আত্মীয়কে মেইল করে পুরো ঘটনা জানায় সে।

অর্থসূচক/কেএসআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ