আ.লীগের সম্মেলনে দাওয়াত পাবে বিএনপি
শনিবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

আ.লীগের সম্মেলনে দাওয়াত পাবে বিএনপি

আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলনে বিএনপিকে নিমন্ত্রণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, দলের আসন্ন সম্মেলনে বিএনপিকে নিমন্ত্রণ করা হবে। নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে। যেহেতু মজিববর্ষে বিদেশি অতিথিদের আমন্ত্রণ জানানো হবে, তাই এবারের সম্মেলনে কোনও বিদেশি মেহমানকে আমন্ত্রণ জানানো হবে না। তবে কূটনীতিকদের দাওয়াত দেওয়া হবে।

ফাইল ছবি

আজ শুক্রবার সকালে ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সম্মেলনের প্রস্তুতি জোরেই চলছে। যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের পরপরই মূল দলের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্থাপিত একটি মঞ্চেই সব সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগের সম্মেলনও এই মঞ্চেই অনুষ্ঠিত হবে। এবারও ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নৌকা আকৃতির মঞ্চ তৈরি করা হচ্ছে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সম্মেলনে কে নেতা হবেন আর কে বাদ পড়বেন তা নির্ভর করছে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার ওপর। আমাকেও উনি বাদ দিতে পারেন আবার রাখতেও পারেন। বাদ দিলেও আমাকে সেটা মেনে নিতে হবে। দলে আরও অনেক নেতা আছে তাদেরও খায়েশ থাকতে পারে। কমিটির কলেবর এখন পর্যন্ত বাড়ানোর চিন্তাভাবনা নেই। কমিটি ৮১ জনেরই থাকবে। বর্তমান কমিটিতেই একটি সদস্যপদ ও সভাপতিমণ্ডলীর দুটি সদস্যের পদ খালি আছে। সেগুলো এই মুহূর্তে পূরণ হবে না। সম্মেলনের মধ্য দিয়েই আমরা পুরো কমিটি করে ফেলবো, এটাই আমাদের সিদ্ধান্ত।

কাদের বলেন, দলের সাধারণ সম্পাদক পদেও নেত্রী যা ইচ্ছা করবেন, সেটাই হবে। তিনি পরিবর্তন চাইলে পরিবর্তন হবে। আমাদের এখানে কোনও প্রতিযোগিতা নেই। হয়তো কারও কারও ইচ্ছা ও আকাঙ্ক্ষা থাকতে পারে। সাধারণ সম্পাদক পদেও প্রার্থী থাকতে পারে। সেখানে কোনও অসুবিধা নেই। আমি যদি মনে করি আমার প্রতিদ্বন্দ্বী আর কেউ হতে পারবে না-এটা তো ঠিক না। এটা ডিসাইড করবেন নেত্রী। তবে প্রার্থী হওয়ার অধিকার সবার আছে।

অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সম্মেলনকেন্দ্র করে সংঘর্ষের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সম্মেলনকেন্দ্র করে খুব বেশি সংঘর্ষ চোখে পড়েনি। স্বেচ্ছাসেবক লীগ উত্তরের সম্মেলনে যে পরিমাণ লোক হয়েছে, জাতীয় সম্মেলনেও তত লোক হয় না। এখানে বসাবসি নিয়ে তরুণদের মধ্যে একটু চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়েছে- এটি সত্য কথা। এ বিষয়ে জড়িতদের খুঁজে বের করতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাদের সিরিয়াসলি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর। এ ছাড়া আগামী ৩০ নভেম্বর মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুর, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

অর্থসূচক/এএইচআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ